Cricket

অফ দ্য ট্র্যাকেও সমান উজ্জ্বল, দ্বাদশ শ্রেণীতে প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হিমা – আগাম বার্তা খবর

গুয়াহাটি: ১২ জুলাই, ২০১৮। ফিনল্যান্ডে অনুষ্ঠিত অনুর্ধ্ব-২০ বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপে ৪০০ মিটার দৌড়ে সোনা জিতে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। প্রথম ভারতীয় আথলিট হিসেবে বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের মঞ্চে সোনা জয়। অসমের হিমাকে নিয়ে গর্বের শেষ ছিল না দেশবাসীর। এরপর অগাস্টে জাকার্তায় অনুষ্ঠিত এশিয়ান গেমসে ১টি সোনা, ২টি রুপো জিতে ফের ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডে দেশের নাম উজ্জ্বল করেছিলেন অসমের স্প্রিন্টার।

কিন্তু অফ দ্য ট্র্যাক বছর ঊনিশের হিমার অ্যাকাডেমিক কেরিয়ার নিয়ে অনুরাগীরা কখনও তেমন উচ্চবাচ্য করেননি। কিন্তু অফ দ্য ট্র্যাকেও যে সমান উজ্জ্বল তিনি, প্রমাণ করলেন হিমা দাস। ৭০ শতাংশ নম্বর নিয়ে দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেন সোনার মেয়ে। অসমের নগাঁও এলাকার ঢিং কলেজ থেকে চলতি বছর উচ্চ-মাধ্যমিক পরীক্ষায় বসেছিলেন হিমা। সম্প্রতি প্রকাশ হয়েছে ফল। আর তাতে প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ ‘অর্জুন’ হিমা।

আরও পড়ুন: বিশ্বজয়ের লক্ষ্যে গেরুয়া জার্সি পরতে পারেন বিরাটরা

২০২০ টোকিও অলিম্পিকের জন্য আপাতত পাতিয়ালায় পুরোদমে প্রস্তুতিতে মগ্ন হিমা। তার আগে ২০১৯ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করবেন তিনি। এরইমাঝে গত ফেব্রুয়ারিতে দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষায় বসেছিলেন তিনি। অ্যাথলেটিক্স প্রস্তুতির মাঝেই ব্যস্ত শিডিউলে পড়াশুনার জন্য বের করে নিয়েছিলেন আলাদা সময়। স্বভাবতই বোর্ডের পরীক্ষায় সাফল্যের খবরে উচ্ছ্বসিত হিমা। পরবর্তীতে দিল্লি থেকে উচ্চশিক্ষার সুযোগ গ্রহণ করতে চান অসমের স্প্রিন্টার।

আরও পড়ুন: সিরিজ জিতলেও শেষ ম্যাচে হার ভারতের

অ্যাথলেটিক্সে প্রস্তুতির পাশাপাশি হিমার পড়াশুনায় যাতে কোনওরকম অসুবিধা না হয়, সেজন্য পরীক্ষার আগে সর্বতোভাবে তাঁকে সাহায্য করেছিলেন তাঁর শিক্ষকরা। প্রয়োজন অনুযায়ী হিমার কাছে পৌঁছে গিয়েছিল বিভিন্ন স্টাডি মেটেরিয়ালস ও বই। তাই প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হয়ে হিমা কৃতজ্ঞতা জানাতে ভোলেননি তাঁর শিক্ষকদের। কলা বিভাগের ছাত্রী হিসেবে মেয়ের এই সাফল্যে উচ্ছ্বসিত বাবাও। বিভিন্ন বিষয়ে হিমার প্রাপ্ত নম্বর হল যথাক্রমে-ইংরাজিতে ৬৩, অসমিস ৮৪, অ্যাডভান্স অসমিস ৬০, রাষ্ট্রবিজ্ঞান ৭৫, এডুকেশন ৬৭ ও ভূগোল ৪৬।

Leave a Reply

Back to top button
Close