Cricket

অবশেষে খোঁজ পাওয়া গেল অন্ধকার যুগের নায়ক মেহেদীর, এখন যা করছেন

ফাইল ছবি

বিনোদন ডেস্ক : ঢাকাই চলচ্চিত্রে এক সময়ের পর্দা কাঁপানো অভিনেতা ছিলেন নাজমুল হক শামীম ওরফে মেহেদী। বাংলা চলচ্চিত্রে এক সময় অন্ধকার যুগ থেকে শুরু করে স্বর্ণযুগ দুটোই পার হয়েছে। এরমধ্যে কেউ অন্ধকার যুগকেই গ্রহণ করেছে আবার কেউ বা ভাল সময়ের অপেক্ষায় সরে এসেছে। সেই অন্ধকার যুগের নায়ক হিসেবেই নিজেকে চিনিয়েছেন মেহেদী।

১৯৯৩ সালে প্রখ্যাত চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেনের ‘জন্ম থেকে জ্বলছি’ ছবি দিয়ে চলচ্চিত্রে পা রাখেন তিনি। এরপর ‘পাগল মন’ ছবির মাধ্যমে নায়ক হিসেবে প্রথম অভিষেক হয় তার। তবে ভাল ছবি দিয়ে শুরু করলেও চলচ্চিত্রের পুরো সময় সেই ভাল আর ধরে রাখতে পারেন নি তিনি। মেহেদির সঙ্গে জুটি তখন মুনমুনের, ময়ুরীর, ঝুমকার। তবে মেহেদি-ঝুমকা জুটি বেশ পরিচিতি পায়। তখনকার সময় মুনমুন-ময়ূরী মানে অশ্লীলতায় ভরপুর।

হঠাৎ করেই আসা, আবার চলে যাওয়া মেহেদীর। তবে অশ্লীলতার জন্য নিজের গায়ে দায় নিতে নারাজ এই অভিনেতা। দুষলেন সেই সময়ের প্রযোজক ও নির্মাতাদের।

মেহেদি সেই সময়ের অভিনীত ছবিগুলোকে ‘কমার্শিয়াল’ হিসেবে অভিহিত করে বলেন, ‘আমরা কমার্শিয়াল ছবিগুলোতে অভিনয় করতাম। হ্যাঁ আমরা কিছুটা উত্তেজক দৃশ্যতে অভিনয় করেছি কিন্তু ব্যাপকভাবে ‘কাটপিস’ যুক্ত করে সেই সময়টাকে অশ্লীল যুগ বানানো হয়েছে। যারা এসব করতো তাদেরকে তো কেউ অভিযুক্ত করে না। আমরা অভিনয় করে চলে আসতাম, এরপর একটা গানের দৃশ্যে কিংবা কোনো রোমান্টিক দৃশ্যে সমন্বয় রেখে ‘কাটপিস’ জুড়ে দেওয়া হতো। আর এসবের দায়ও আমাদের ঘাড়ে চলে এসেছে।’

তবে এত বছর পর আবারও চলচ্চিত্র নিয়ে ফিরেছেন এই অভিনেতা। শিগগিরই আত্মপ্রকাশ করতে চান পরিচালক হিসেবে। কিছুদিন আগেই তার অভিনীত ‘বুলেট বাবু’ ছবিটি মুক্তি পেয়েছে। রংবাজ ছবির পরিচালক মান্নান গাজীর ‘প্রেমে অনেক জ্বালা’ নামের একটি ছবিতে অভিনয় করেছেন। যার অর্ধেক কাজ সমাপ্ত। এছাড়াও ‘বস্তির সম্রাট’ নামের একটি ছবিতে অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। এছাড়াও বিভিন্ন সার্কাসেও কাজ করেন তিনি।

ঢাকার হাবিবুল্লাহ বাহার বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে বিএ পাস করা মেহেদির পুরান ঢাকায় ব্যবসা রয়েছে। রয়েছে মতিঝিলে পেট্রোল পাম্প। বিয়ে করেছেন পুরান ঢাকার মেয়ে ফারজানাকে। তাদের ঘরে রয়েছে এক ছেলে ও এক মেয়ে।

আগাম বার্তা/এসওআর

Leave a Reply

Back to top button
Close