Islam

অমুসলিমদের দেয়া প্রসাদ খাওয়া জায়েজ?

মুফতি আবদুল্লাহ তামিম ♦

অমুসলিমদের দেয়া প্রসাদ খাওয়া জায়েজ নয়। কারণ, মুর্তি ইত্যাদি কুফরি ধর্মের বিশেষ এক প্রকার খাদ্যকে তারা প্রসাদ বলে। তাদের এ বিশেষ প্রসাদ দেয়া-নেয়ার ব্যপারে মহান আল্লাহ্ পবিত্র কুরআনের মোট চার জায়গায় উল্লেখ করেছেন।

সূরাহ বাকারার ১৭৩ নং আয়াতে আছে-  إِنَّمَا حَرَّمَ عَلَيْكُمُ الْمَيْتَةَ وَالدَّمَ وَلَحْمَ الْخِنزِيرِ وَمَآ أُهِلَّ بِهِۦ لِغَيْرِ اللَّهِ ۖ فَمَنِ اضْطُرَّ غَيْرَ بَاغٍ وَلَا عَادٍ فَلَآ إِثْمَ عَلَيْهِ ۚ إِنَّ اللَّهَ غَفُورٌ رَّحِيمٌ

অর্থ: তিনি তোমাদের উপর হারাম করেছেন, মৃত জীব, রক্ত, শুকর মাংস এবং সেসব জীব-জন্তু যা আল্লাহ ব্যাতীত অপর কারো নামে উৎসর্গ করা হয়। অবশ্য যে লোক অনন্যোপায় হয়ে পড়ে এবং নাফরমানী ও সীমালঙ্ঘনকারী না হয়, তার জন্য কোন পাপ নেই। নিঃসন্দেহে আল্লাহ মহান ক্ষমাশীল, অত্যন্ত দয়ালু। সুরা বাকারা-১৭৩

এখন প্রসাদে যে যন্তুর গোস্ত থাকে সেগুলো যদি আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো নামে জবাই করা হয় তাহলে এটা বিভাবে জায়েজ হয়।

সূরাহ মায়িদাহ’র ৩ নং আয়াতে আছে- তোমাদের জন্যে হারাম করা হয়েছে মৃত জীব, রক্ত, শুকরের মাংস, যেসব জন্তু আল্লাহ ছাড়া অন্যের নামে উৎসর্গকৃত হয়, যা কন্ঠরোধে মারা যায়, যা আঘাত লেগে মারা যায়, যা উচ্চ স্থান থেকে পতনের ফলে মারা যা, যা শিং এর আঘাতে মারা যায় এবং যাকে হিংস্র জন্তু ভক্ষণ করেছে, কিন্তু যাকে তোমরা যবেহ করেছ। যে জন্তু যজ্ঞবেদীতে যবেহ করা হয় এবং যা ভাগ্য নির্ধারক শর দ্বারা বন্টন করা হয়।

এসব গোনাহর কাজ। আজ কাফেররা তোমাদের দ্বীন থেকে নিরাশ হয়ে গেছে। অতএব তাদেরকে ভয় করো না বরং আমাকে ভয় কর। আজ আমি তোমাদের জন্যে তোমাদের দ্বীনকে পূর্নাঙ্গ করে দিলাম, তোমাদের প্রতি আমার অবদান সম্পূর্ণ করে দিলাম এবং ইসলামকে তোমাদের জন্যে দ্বীন হিসেবে পছন্দ করলাম। অতএব যে ব্যাক্তি তীব্র ক্ষুধায় কাতর হয়ে পড়ে; কিন্তু কোন গোনাহর প্রতি প্রবণতা না থাকে, তবে নিশ্চয়ই আল্লাহ তা’আলা ক্ষমাশীল।

সূরাহ আনআমের ১৪৫ নং আয়াতে আছে- আপনি বলে দিনঃ যা কিছু বিধান ওহীর মাধ্যমে আমার কাছে পৌঁছেছে, তন্মধ্যে আমি কোন হারাম খাদ্য পাই না কোন ভক্ষণকারীর জন্যে, যা সে ভক্ষণ করে; কিন্তু মৃত অথবা প্রবাহিত রক্ত অথবা শুকরের মাংস এটা অপবিত্র অথবা অবৈধ; যবেহ করা জন্তু যা আল্লাহ ছাড়া অন্যের নামে উৎসর্গ করা হয়। অতপর যে ক্ষুধায় কাতর হয়ে পড়ে এমতাবস্থায় যে অবাধ্যতা করে না এবং সীমালঙ্গন করে না, নিশ্চয় আপনার পালনকর্তা ক্ষমাশীল দয়ালু।

সূরাহ নাহলের ১১৫ নং আয়াতে আছে- অবশ্যই আল্লাহ তোমাদের জন্যে হারাম করেছেন রক্ত, শুকরের মাংস এবং যা জবাই কালে আল্লাহ ছাড়া অন্যের নাম উচ্চারণ করা হয়েছে। অতঃপর কেউ সীমালঙ্ঘন কারী না হয়ে নিরুপায় হয়ে পড়লে তবে, আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।

সুতরাং কুরআনের এ আয়াতগুলোর মাধ্যমে আমরা বুঝতে পারি হিন্দুরা মুসলিমদের ছোট ছোট বাচ্চাদেরকে হারাম খাওয়ানোর জন্যই এ চক্রান্ত করে আসছে। সাবধান হওয়া দরকার। আল্লাহ আমাদের সবাইকে বুঝার তাওফিক দান করুন। আমিন।

-এটি

বিষয়ঃ

Leave a Reply

Back to top button
Close