International

আকাশে উড়ন্ত বিমানে আগুন, দাউ দাউ করে নীচে পড়ছে জ্বলন্ত টুকরো

ওয়াশিংটন: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফের বিমান দুর্ঘটনা। দূর্ঘটনার ডেনভার থেকে হাওয়াই যাওয়া এক বিমান। জানা গিয়েছে, হঠাৎ করেই আগুন লেগে যায় ওই বিমানের ইঞ্জিনে। যার জেরে বিমান থেকে ইঞ্জিনের টুকরোগুলি পুড়ে পুড়ে নীচে পড়তে থাকে। এমনকি ভিতরে থাকা যাত্রীদেরও প্রচণ্ড গরম লাগতে শুরু করে। দ্বিরুক্তি না করে ফের ডেনভার এয়ারপোর্টেই বিমানকে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নেন পাইলট। এয়ারপোর্টে অবশ্য সফল ভাবে ল্যান্ডিং করে বিমান। ফ্লাইটের সমস্ত যাত্রী এবং ক্রু সদস্যরা সুরক্ষিত আছেন বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন – এতদিন লোককে ভয় দেখাচ্ছিল এখন নিজেরা ভয় পাচ্ছে: দিলীপ ঘোষ

খবর মোতাবেক, আমেরিকার ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের বিমানটি ডেনভার থেকে হাওয়াই এর উদ্দেশ্যে উড়ান নিয়েছিল। বোয়িং ৭৭ নামক এই বিমানটি যথেষ্ট বড় একটি বিমান। এতে যাত্রী ছিলেন প্রায় ২৩১ জন। যখন আগুন লক্ষ্য করা হয় তখন বিমানটি ১৫ হাজার ফুট উঁচুতে উঠছিল। জানা গিয়েছে, ফ্লাইটের ইঞ্জিনে আগুন লাগে।

রিপোর্ট বলছে, ডেনভার বিমানবন্দর থেকে হাওয়াইয়ের উদ্দেশ্যে রোনা দেওয়ার মিনিট ২০ এর মধ্যে ফ্লাইটটির একটি ইঞ্জিনে আগুন ধরে যায়। ফলে ফ্লাইটে থাকা যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। স্থানীয় সময় অনুযায়ী, শনিবার বিকেলে এই দূর্ঘটনা ঘটে। এরপরেই বিমানটি ডেনভার বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে।

আরও পড়ুন – মাইক্রোওয়েভে খাবার গরম করার আগে সাবধান, ব্যবহার করুন বিশেষ পাত্র

নীচে এসে পড়ে বড় বড় টুকরো

সে দেশের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, বিমানের ইঞ্জিনে আগুন লেগে যাওয়ার ফলে ভিতরে থাকা যাত্রীদেরও গরম লাগতে শুরু করে। বড় টুকরো নীচে পড়তে শুরু করে। বেশ কয়েকটি বড় টুকরো পড়ে কলোরাডোর রেসিডেনশিয়াল এলাকায়। তবে স্বস্তির খবর হল, পাইলট দ্রুত ফিরে আসায় ও বিমানটি সঠিক ভাবে ল্যান্ডিং করতে পারায় কারও কোনও ক্ষতি হয়নি। ১০ জন ক্রু সদস্য সহ সকল যাত্রীরাই নিরাপদে রয়েছেন।

আরও পড়ুন – উত্তরাখণ্ড বিপর্যয়ে নবনির্মিত হ্রদের গভীরতা নির্ণয়, বরফ শীতল জলে নামল ডুবুরি

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.
হ্যাঁ, আমি অনুদান করতে ইচ্ছুক >

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।

Back to top button