Entrepreneur

আখ চাষ করে কোটিপতি শুক্লা

বেকারত্ব প্রায় সব দেশের অন্যতম প্রধান সমস্যা। এর ফলে দেশের চুরি, ডাকাতি, এমনকি হত্যার মত অনেক ধরনের অপরাধ সংঘটিত হয়। এই বেকারত্বের কারণে প্রতিদিন হাজার হাজার যুবক কর্মসংস্থানের সন্ধানে শহরে পাড়ি জমান। কিন্তু এমন কিছু মানুষ থাকে যারা গ্রামে থেকে কঠোর পরিশ্রম এবং সঠিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমে হয়ে উঠছেন সফল ও কোটিপতি।

সভাপতি শুক্লা এমনই একজন অসাধারণ প্রতিভাধর ব্যক্তি যিনি ভারতের উওর প্রদেশের শহর থেকে ৫৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত একটি ছোট্ট গ্রাম কেশবপূরে আখ চাষের মত লাভজনক ব্যবসায় করে পুরো গ্রামের অগ্রগতিতে সহায়তা করেছেন।

২০০১ সালে শুক্লা তার পরিবার থেকে আলাদা হয় যান এবং পৈতৃক জমিতে একটি ছোট্ট কুটির স্থাপন করেছিলেন। তিনি জীবনটাকে নতুন করে শুরু করতে চেয়েছিলেন। তাই তিনি কখনও কর্মসংস্থানের জন্য শহরে যাওয়ার কথা ভাবেননি। বরং তিনি চিন্তা করতেন কিভাবে গ্রামে থেকে কিছু করা যায়। তাঁর এই চাওয়া থেকেই তিনি গ্রামীণ ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে নিজের জমিতে আখের চাষ করা শুরু করেন।

কিন্তু ২০০৩ সালে তিনি এই ব্যবসায় ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছিলেন। পরে তিনি এক রাতে তার স্ত্রীকে বলেন যে আখগুলোকে যেন আগুনে পুড়িয়ে দেয়। কিন্তু তার স্ত্রী বলেন এগুলো পুড়িয়ে দেওয়ার চেয়ে গ্রামবাসিদের মধ্যে বিতরণ করা ভালো। শুক্লা তার স্ত্রীর কথা রাখলেন এবং আখের রস থেকে তারা ভিনেগার প্রস্তুত করেন এবং গ্রামবাসীদের মধ্যে তা বিতরণ করেন। এটি সেই সময়ে একটি বিপ্লব নিয়ে এসেছিল। গ্রামবাসীরা তাদের তৈরী ভিনেগারের স্বাদ এতটাই পছন্দ করেছিল যে তারা আরো বেশি ভিনেগার চাইতে শুরু করলো। তখন তিনি দ্রুত আখের রস থেকে ভিনেগার তৈরির দুর্দান্ত ব্যবসার সুযোগটি বুঝতে পারেন এবং সেই সুযোগের সৎ ব্যবহার করলেন।

বর্তমানে তাদের তৈরী ভিনেগার আজ উত্তর প্রদেশ, বিহার, মহারাষ্ট্র, পাঞ্জাব, বাংলা, দিল্লি, হরিয়ানা, মধ্য প্রদেশ এবং দেশের অন্যান্য রাজ্যের বিভিন্ন অঞ্চলে লক্ষ লক্ষ লিটার বিক্রি হচ্ছে। বর্তমানে তার বার্ষিক আয় কোটি টাকারও বেশী। তার সাফল্যের সেরা অংশটি হলো তিনি তার ব্যবসার মাধ্যমে তার গ্রামের সকল বেকার যুবককে কর্মসংস্থানের বাবস্থা করে দিয়েছেন। গ্রামবাসীরা যারা এক সময় বিভিন্ন সমস্যায় জর্জারিত ছিল এখন তারা ভালোভাবে জীবন যাপন করছেন ।

শুক্লার এই সফলতা আমাদের মনে করিয়ে দেয় যে আমাদের চারপাশে প্রচুর সুযোগ রয়েছে যা চাইলে আমরা আমাদের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য ব্যবহার করতে পারি। আমরা যদি সুস্পষ্ট লক্ষ্য স্থির করি এবং পরিশ্রমের সাথে কাজ করি তবে আমাদের সফলতা অর্জন করা সহজ হবে।

Leave a Reply

Back to top button
Close