International

ইজরায়েলে সরকার বদল, নাফতালি বেনেটকে স্বাগত জানালেন বাইডেন

ওয়াশিংটন : রেকর্ড করেছেন ইজরায়েলের (Israel) প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু (Benjamin Netanyahu)। টানা ১২ বছর ধরে প্রধানমন্ত্রী পদ ধরে ছিলেন তিনি। রবিবার সেই মেয়াদ শেষ হল। এরপর পার্লামেন্ট সরকার পরিবর্তনের কথা বলেছে। এবার সরকারের নেতৃত্ব দেবেন জাতীয়তাবাদী নাফতালি বেনেট (Naftali Bennett)। তাঁর নেতৃত্বেই গঠিত হবে “পরিবর্তনের সরকার” (government of change)। নতুন এই সরকারকে স্বাগত জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন (Joe Biden)।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, আমেরিকা ইজরায়েলের সুরক্ষার প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। নতুন সরকারের সঙ্গে হাত মিলিয়ে কাজ করবে আমেরিকা। নাফতালি বেনেটের নেতৃত্বাধীন নতুন সরকার জোটকে স্বাগত জানিয়েছেন তিনি। মার্কিন-ইজরায়েলের সম্পর্ক আরও দৃঢ় করার বার্তা দিয়েছেন বাইডেন। হোয়াইট হাউসের তরফে জানানো হয়েছে, বেনেটকে উষ্ণ অভিনন্দন জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইজরায়েল যৌথভাবে আরও কাজ করবে বলে একমত হয়েছেন নেতারা। ইরান সহ আঞ্চলিক সুরক্ষা সম্পর্কিত সমস্ত বিষয়ে দুই দেশ পরামর্শ করবে বলেও হোয়াইট হাউস সূত্রে খবর। বাইডেন বলেছেন, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র আগেও ইসরায়েলের সুরক্ষার জন্য এগিয়ে এসেছে। আমেরিকা ইজরায়েল, প্যালেস্টাইন এবং বিস্তৃত অঞ্চলের নিরাপত্তা ও শান্তির জন্য সম্পূর্ণ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

নেতানিয়াহুকে অপসারণ করার ইচ্ছা বা প্রচেষ্টা একদিনের নয়। বহুদিন ধরেই তাঁর বিরুদ্ধে দানা বাঁধছিল ক্ষোভ। সম্প্রতি গাজায় ইজরায়েল ও প্যালেস্টাইনের মধ্যে সংঘাত নিয়েও অনেকে নেতানিয়াহুর বিরোধী মত পোষণ করছিলেন। রবিবার পার্লামেন্টে ভোট হয়। তার মধ্যে নেতানইয়াহু পান ৫৯টি ভোট। তাঁর বিপক্ষে যায় ৬০টি ভোট। মাত্র একটি ভোটের ব্যবধানে সরকার থেকে বিরোধী পক্ষ হয়ে যান নেতানিয়াহু। তাঁর বিরুদ্ধে বিজয়ী নাফতালি বেনেট একসময় নেতানিয়াহুরই অনুসরণকারী ছিলেন। তবে প্রধানমন্ত্রীর কুর্সি পাওয়ার পর তাঁর পথ খুব একটা সহজ হবে না। কারণ তাঁকে বামপন্থী, মধ্যপন্থী, ডানপন্থী এবং আরব দলগুলির মধ্যে জোট টিকিয়ে রাখতে হবে। তেলআবিবতে, দুই বছরের মধ্যে চারটি অনির্বাচিত নির্বাচনের পরে হাজার হাজার লোক এই নির্বাচনের ফলাফলকে স্বাগত জানায়। উচ্ছ্বাসে রাস্তায় বেরিয়ে এসেছিল জনগণ। রবিন স্কোয়্যার উল্লাসে ভেসে যায়। নেতানিয়াহুর বিরোধীদের ‘বাই বাই বিবি’ পোস্টার পড়তে শুরু করে। প্রধানমন্ত্রীর কুর্সি হাতছাড়া হওয়ার পর নেতানিয়াহু জানিয়েছেন, “বিরোধী দল হওয়া আমাদের নিয়তি ছিল। আমরা মাথা উঁচু করে দায়িত্ব পালন করব।” বেনেটের শপথ গ্রহণের আগে পার্লামেন্টে একথা বলেন তিনি।

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.
হ্যাঁ, আমি অনুদান করতে ইচ্ছুক >

Back to top button