Islam

ইন্দোনেশিয়ার কাঠে খোদাই করে সর্ববৃহৎ কোরআন শরীফ তৈরি

কুরআন মু’সলমানদের প্রধান ধ’র্মগ্রন্থ। ইস’লামী ইতিহাস অনুসারে দীর্ঘ তেইশ বছর ধরে খণ্ড খণ্ড অংশে হযরত মুহাম্ম’দ (সাঃ) এর নিকট অবতীর্ণ হয় পবিত্র কুরআন। একজন মু’সলমান হিসেবে অবশ্যই আমাদের কুরআন পড়া উচিৎ। যুগ যুগ ধরে বহু মানুষ কোরআনের সেবা করে যাচ্ছেন। তারই ধারাবিকতায় এবার ইন্দোনেশিয়ার দক্ষিণ সুমাত্রা প্রদেশের পালেমবাঙ্গেতে কাঠে খোদাইকৃত পৃথিবীর সর্ববৃহৎ পবিত্র কোরআন প্রস্তুত হয়েছে।

জানা যায়, কাঠের ওপর খোদাইকৃত পবিত্র কোরআনের প্রতি পৃষ্ঠার দৈর্ঘ্য ১.৭৭ মিটার ও প্রস্থ ১.৪০ মিটার। অর্থাৎ ৫.৮ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৪.৬ ফুট প্রস্থ। পাঁচতলা বিশিষ্ট এই বিশাল পবিত্র কোরআনটি পেলামবাঙ্গের আল-ইহসানিয়া গান্দুস বোর্ডিং স্কুলের আল-কোরআন আল-আকবর জাদুঘরে রাখা হয়েছে। ২০১১ সালে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট সুসিলো বাম্বাং জুহোয়ানোও বৃহদাকারের এ পবিত্র কোরআন প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন।

বর্তমানে ইন্দোনেশীয় নাগরিকদের কাছে আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু এই পবিত্র কোরআন। প্রতিদিন পবিত্র কোরআনটির প্রদর্শনী দেখতে প্রচুর দর্শনার্থী হাজির হন। পবিত্র কোরআনের পাণ্ডুলিপি প্রস্তুতকারক সাফওয়াতিল্লাহ মোহ’জাইব বলেন, ৩০ পারা পবিত্র কোরআনের এই পাণ্ডুলিপি তৈরি করতে ৯ বছর সময় লেগেছে। প্রয়োজনীয় কাঠ ও অর্থের অভাবেই মূলত কাজ নির্ধারিত সময়ে শেষ করতে দেরি হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close