Recipe

এই সময়ে পাতে থাকুক সজনের নানা রেসিপি, রইলো সন্ধান

কলকাতা: গরমকাল মানেই গরম ভাতের সঙ্গে পাতে পর্বে সজনে ডাঁটার কোনো না কোনো বিশেষ পদ। মা-ঠাকুমারা বলেন এই সময়ের এই সব্জিতে রয়েছে বিশেষ গুণ যার জন্যে একে এখন অবহেলা করা উচিত নয়। হাম-বসন্তের মতো কঠিন রোগের দাওয়াই এই সব্জি। শুক্তো থেকে শুরু করে তরকারি, মাছের ঝোলে ডাঁটার স্বাদই আলাদা। তাই যারা রেসিপিগুলো জানেন না তাদের জন্যে রইলো বিস্তৃত বিবরণ। আজ থেকেই শুরু করুন সজনের নানা পদ রান্না।

১. সজনে ফুলের বড়া: সন্ধেবেলার চায়ের সঙ্গে আড্ডা জমিয়ে দেবে এই বড়া। আবার দুপুরেও ডালের সঙ্গে রাখতে পারেন এই উপাদেয় পদটি। প্রথমে সজনে ফুলগুলি ভাল করে ধুয়ে নিয়ে শুকিয়ে নিতে হবে। এর পর একটা কাচের বড় বাটিতে ১ কাপ বেসন, ১ কাপ কর্নফ্লাওয়ার আর ১ কাপ চালের গুঁড়ো নিন। এ বার এর মধ্যে ২ টেবিল চামচ পিঁয়াজ কুচি, আধ চা-চামচ আদা-রসুন বাটা, ২ টো কুচিয়ে রাখা লঙ্কা, ১ টেবিল চামচ কুচোনো ধনেপাতা, কালোজিরে, ভাজা জিরে গুঁড়ো আর স্বাদ মতো নুন দিয়ে মেখে নিন।

এর পর সজনে ফুল এই মিশ্রণে দিয়ে ভাল করে ডুবিয়ে নিতে হবে। প্যানে তেল গরম হলে এক এক করে মিশ্রণ ঢেলে বড়ার মতো করে ভেজে নিন। এবার কড়া থেকে নামিয়ে গরম গরম মুচমুচে সজনে ফুলের বড়া পরিবেশন করুন সসের সঙ্গে বা কাসুন্দির সঙ্গে।

২. সজনে ফুল ভাজা: প্রথমে একটা প্যানে তেল গরম করে নেবেন। এবার তেল গরম হলে তার মধ্যে ২টো শুকনো লঙ্কা ফোড়ন দিন। শুকনো লঙ্কাটা তেলে নেড়েচেড়ে নিয়ে ৩ টেবিল চামচ রসুন কুচি দিন। ভাল করে নেড়ে নিয়ে ৫ টেবিল চামচ পিঁয়াজ কুচিগুলো দিয়ে দিন। পিঁয়াজ বাদামি রঙ হয়ে গেলে ভাজা হয়ে যাবে। এ বার সজনে ফুলগুলো আর চেরা লঙ্কাগুলো দিয়ে দিন। একটু নেড়ে নিয়ে স্বাদ অনুযায়ী নুন দিন। নাড়াতে থাকুন। ভাজা হয়ে গেলে নামিয়ে নিন। গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করতে পারেন লাঞ্চে।

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.
হ্যাঁ, আমি অনুদান করতে ইচ্ছুক >

Back to top button