প্রযুক্তির খবর

এক কাপ চা খেতে খেতেই ফুল চার্জ হয়ে যাবে মোবাইল

বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি ডেস্ক:
যারা স্মার্টফোন ব্যবহার করেন তাদের কাছে সবচেয়ে যন্ত্রণার বিষয় হলো ব্যাটারির চার্জ দ্রুত ফুরিয়ে যাওয়া। কথা বলার পাশাপাশি চ্যাটিংসহ নানা কাজে মানুষ প্রতিনিয়ত ব্যস্ত স্মার্টফোনে। ইন্টারনেটের কারণে ভিডিও গেম থেকে ওয়েব সিরিজ দেখা, সবই চলছে। আর নানাবিধ ব্যবহারের কারণে ব্যাটারির সবুজ রং হয়ে আসে লাল। পাওয়ার ব্যাংক দিয়েও প্রত্যাশা পূরণ হয় না। আবার নতুন করে চার্জ হতে সময়ও লাগে।
এমন বিষয় মাথায় রেখেই বাজারে আসছে কুইক চার্জার। এতে কম সময়ে চার্জ হয়ে যাবে হ্যান্ডসেট। এক কাপ চা পান করতে যতটুকু সময় লাগে, সেই সময়ে ফুল চার্জ হয়ে যাবে আপনার হ্যান্ডসেট। মাত্র ৬ মিনিটই যথেষ্ট। অনেক অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন বাজারে আনছে কোয়ালকমের কুইজ চার্জার। এতে করে অপেক্ষাকৃত কম সময়ে চার্জ হয়ে যায় হ্যান্ডসেট।
ইন্ডিয়া টাইমসের খবরে বলা হয়েছে, কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসিয়ন টেকনোলজি লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি প্রযুক্তি ব্যবহার করে সাফল্য পেয়েছে। এর মাধ্যমে দ্রুত মোবাইল চার্জ হবে। ইসিয়ন টেকনোলজির প্রতিষ্ঠাতা জিন ডে লা ভার্পিলিয়ার কম সময়ে ব্যাটারি চার্জের এক বিশেষ প্রযুক্তি আবিষ্কার করেছেন। এতে ব্যাটারির গ্রাফাইট সম্পূর্ণ অন্য একটি ধাতব পদার্থে পরিণত হয়ে যায়। আর এর ফলে দ্রুত চার্জ হবে ব্যাটারি। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী বছরের শুরুতেই মানুষের হাতে এই প্রযুক্তি চলে আসবে।
জিন ডে লা ভার্পিলিয়ার বলেন, লিথিয়াম ব্যাটারির মূল উপাদান হলো পাউডার। এই বিশেষ পাউডারই মাত্র ৬ মিনিটে মোবাইল চার্জ করে দিতে পারে, ৩০ বা ৪৫ মিনিট সময় লাগে না। অনেক সময় দেখা যায়, চার্জ করার সময় ব্যাটারির বিস্ফোরণ ঘটে। এ ক্ষেত্রে সেই ভয়ও নেই। এই নতুন ধাতুতে দ্রুত চার্জ হলেও আগুন লাগার আশঙ্কা থাকে না।
মোবাইলের পাশাপাশি ইলেকট্রিক গাড়ির জন্যও একই প্রযুক্তি আনার পরিকল্পনা রয়েছে প্রতিষ্ঠানটি, যাতে এ ধরনের গাড়িতে চার্জের জন্য বেশি সময় নষ্ট করতে না হয়। নিঃসন্দেহে এই প্রযুক্তি ইলেকট্রিক গাড়ির মালিকের কাছে হাতে চাঁদ পাওয়ার মতোই ঘটনা হবে।
কিন্তু এখন প্রশ্ন জাগতে পারে, এমন প্রযুক্তির সুফল সাধারণ মানুষ কবে থেকে পাবেন। সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সব ঠিকঠাক থাকলে আগামী বছরের শুরুতেই এই প্রযুক্তি বাজারে আসবে। এলে বিদ্যুৎ গতিতে মোবাইল চার্জ এখন শুধুই সময়ের অপেক্ষা।
প্রথামআলো

Leave a Reply

Back to top button
Close