আন্তর্জাতিক

কেন ইসলাম ধর্ম গ্রহণে বাধ্য করানো হয়, প্রশ্নের মুখে পড়তে পারেন ইমরান – আগাম বার্তা

ওয়াশিংটন: মার্কিন সফরে গিয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মুখোমুখি হবে তিনি। আর সেই বৈঠকের ঠিক আগে ইমরান খানকে ধর্মান্তরকরণ নিয়ে চাপ দেওয়ার আর্জি জানালেন মার্কিন কংগ্রেসের সদস্যরা।

পাকিস্তানের জোর করে ধর্মান্তরকরণ করা হয়। এমন খবর প্রায়ই উঠে আসে শিরোনামে। তাই সেই ধরনের ঘটনা নিয়ে যাতে ইমরান খানকে প্রশ্ন করা হয়, তার জন্য ট্রাম্পকে চিঠি দিলেন মার্কিন কংগ্রেসের ১০ সদস্য। গত ১৯ জুলাই সেই চিঠি দেওয়া হয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে।

সেই চিঠিতে মার্কিন কংগ্রেসের সদস্যরা জানিয়েছেন, আমেরিকা অন্তত ৩০ মিলিয়ন ডলারের আর্থিক সাহায্য করেছে পাকিস্তানকে। অথচ পাকিস্তানের কোনও উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়নি। সামাজিক কিংবা আর্থিক পরিস্থিতি বদলায়নি সেখানকার মানুষের। বিশেষত পাকিস্তানের সিন্ধ প্রভিন্সের সমস্যার কথা তুলে ধরা হয়েছে সেই চিঠিতে। সেখানে কীভাবে মানুষ দিনের পর দিন বঞ্চিত হচ্ছে মানুষ, সেই বিষয়েরও উল্লেখ রয়েছে।

হিন্দু ও ক্রিশ্চান কিশোরীদের কীভাবে জোর করে ধর্মান্তরিত করা হয়, সেই বর্ণনাও রয়েছে ট্রাম্পকে দেওয়া চিঠিতে। প্রথমে তাঁদের অপহরণ করা হব। তারপর জোর করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণে বাধ্য করা হয়। তারপর বয়সে অনেক বড় ব্যক্তির সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়। শুধুমাত্র ২০১৮-তেই সিন্ধ প্রদেশে এরকম ঘটনা ঘটেছে অন্তত হাজার খানেক। আর এই সব ঘটনার জন্য সরাসরি ইমরান খানকে দায়ী করছে মার্কিন কংগ্রেসের ওই সদস্যরা।

শুধু তাই নয়, পাকিস্তানে সন্ত্রাস, জলের সমস্যা ও সাম্প্রতিক এইচআইভি সংক্রমণের ঘটনার কথাও বলা হয়েছে।

ট্রাম্পকে ওই চিঠি লিখেছেন ব্র্যাড শেরম্যান, অ্যান ওয়াগনার, অ্যাডাম বি স্কিফ, জ্যান চ্যাকোস্কি, ইলিয়ানর এইচ নরটন, ক্যারোলিন বি মালোনে, ডেভিড ই প্রাইস, জুয়ান ভারগাস, ডেভিড স্কিকার্ট ও ড্যান ক্রেনশ। এরা চাইছেন, যাতে আলোচনার সময় ট্রাম্প ইমরান খানকে এইসব প্রশ্নের মুখে ফেলেন। সুতরাং ট্রাম্পের সঙ্গে ইমরানের বৈঠকে উঠে আসতে পারে এই সব প্রসঙ্গ।

Leave a Reply

Back to top button
Close