Recipe

ডায়েটে আছেন…বানান ওট দিয়ে মুচমুচে কাটলেট

কলকাতা: আজকাল ডায়েট মানতে একটি জিনিস না হলেই নয়, সেটা হলো ওট। এর স্বাস্থ্যগুণ এই উপাদানকে এত চাহিদা প্রবণ করে তুলেছে। সেই সঙ্গে আবার রয়েছে রসনা তৃপ্তির সুযোগ। একসঙ্গে অনেকগুলো ও অনেক স্বাদের পদ বানাতে পারেন এই একটি উপাদান দিয়ে। খাদ্যগুণ একই থাকবে। ওজন থাকবে নিয়ন্ত্রণে আর ওজন কমানোর জ্বালাও থাকবে না। তবে আজ যে রেসিপি শেয়ার করা হলো সেটা একেবারেই আলাদা। ওট দিয়ে কাটলেট বানালে সেটা খেতে কতটা গ্রহণযোগ্য হবে এটা নিয়ে প্রশ্ন করেন অনেকেই। তারা একবার ট্রাই করুন নিজেই। তাক লাগিয়ে দিন পরিবারের বাকি সদস্যদেরকেও।

ওট-এ আছে যাবতীয় ভিটামিন, খনিজ, ফাইবার, এন্টি অক্সিডেন্টস যা আমাদের শরীরের সার্বিক পুষ্টির জন্যে দরকারি। শুধু ওজন কমানো নয়, রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণ, হৃদ রোগের সম্ভাবনা কম করতেও আপনি ভরসা করতে পারেন এই উপাদানটির উপর। সবথেকে বড়ো কথা যে কোনো বড়ো আইটেমের সঙ্গে সাইড ডিশ হিসেবে বেশ মানায় ওট।

আরো পোস্ট- বিজেপি নেতাকে গুলি করে খুনের চেষ্টার অভিযোগ, কাঠগড়ায় তৃণমূল

উপকরণ: ভাজা ওট এক কাপ, আধ কাপ পনির, ৪ টেবিল চামচ গাজর কুচি, এক কাপ সেদ্ধ আলু, এক চা চামচ আদা বাটা, প্রয়োজন অনুসারে তেল, স্বাদ মত নুন, গরম মশলা আধ চা চামচ, লংকা বাটা প্রয়োজন মত।

প্রণালি: আলুর টুকরোগুলোকে চটকে নিন। এবার ওতে ওট, আদা বাটা, লংকা বাটা, গাজর কুচি, নুন, গরম মশলা দিয়ে দিন। পনির টুকরো টুকরো করে দিন একদম ছোট করে। এবার সবটা মাখুন আটার মত। এবার সেখান থেকে লুচির লেচির মত নিন। তালুর সাহয্যে বল তৈরি করে চ্যাপ্টা করে নিন। সাইজটা যেনো কাটলেটের মতোই হয়। এবার প্যানে আপনার পছন্দের মত তেল দিন অল্প। তাতে কাটলেটগুলি এক এক করে দিয়ে ভাজতে থাকুন। ভাজতে ভাজতে বাদামি রঙ হয়ে গেলে নামিয়ে নিন। সঙ্গে রাখুন ধনেপাতার চাটনি। একেবারে জমে যাবে সন্ধের আড্ডা। গরমকালে রাখতে পারেন এর সঙ্গে লেবুর সরবত।

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.
হ্যাঁ, আমি অনুদান করতে ইচ্ছুক >

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।

Back to top button