রুপচর্চা

নাইট ক্রিম ব্যবহার করা কি ভালো?

আগামবার্তা ডেস্ক : আমাদের প্রতিদিনের ত্বক চর্চায় সত্যিই কি এই ক্রিমের প্রয়োজন আছে? নাকি নাইট ক্রিম শুধুই একটি বাড়তি বিউটি প্রোডাক্ট? নাইট ক্রিমকে দু’টি ভাবে ভাগ করা যেতে পারে। প্রথমত এন্টি এজিং নাইট ক্রিম, নিশ্চয় বুঝতে পারছেন এই ধরনের নাইট ক্রিম কেন ব্যবহার করা হয়। বয়সের ছাপ যেমন চামড়া কুঁচকে যাওয়া, ত্বকে কালো ছোপ, বলিরেখা ইত্যাদি দূর করার জন্য এই ধরনের নাইট ক্রিমের ব্যবহার হয়ে থাকে। এন্টি এজিং নাইট ক্রিমে রেটিনোল, গ্লাইকোলিক অ্যাসিড, স্যালিসিলিক অ্যাসিড এবং রেটিনেল অ্যাসেট এর মতো উপাদান থাকে। এই সমস্ত উপাদান আপনার পুরনো ত্বকে সরিয়ে নতুন ত্বককে বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। এমনও বলা যেতে পারে যে, এই উপাদানগুলি সারা রাত ধরে ত্বকের কোষগুলিকে উদ্দীপিত করে এবং এর স্বাভাবিক বৃদ্ধি ঘটায়। এর ফলে বয়স বাড়ার যে সমস্ত লক্ষণ রয়েছে তা ধীরে ধীতে ত্বক থেকে হ্রাস পেতে থাকে। এই সমস্ত উপাদানগুলি ত্বকের সংবেদনশীলতা অনেক বেশি বাড়িয়ে তুলতে পারে। তাই সূর্যের এক্সপোজার এড়ানো উচিত। নয় তো UV রেগুলিতে আপনার ত্বক আরো বেশি প্রভাবিত হবে। তাই এই ধরনের প্রোডাক্ট রাতেই ব্যবহার করা উচিৎ।

আরো পড়ুন:- সার্ক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ৩টি পুরস্কার জিতল ‘নগরকীর্তন’

দ্বিতীয়ত ডীপ ময়শ্চারাইজার, আমরা দিনের বেলা বা অন্য সময় যে ধরনের ময়শ্চারাইজার ব্যবহার করি তার থেকেও অনেক বেশি হাইড্রটিং এবং উচ্চ মাত্রায় ময়শ্চারাইজিং উপাদান থাকে নাইট ক্রিমে। রাতেই ত্বককে বেশি আর্দ্রতা রাখা দরকার, এর পেছেনে কোনও প্রকৃত কারণ নেই। তবে হ্যাঁ সারা রাত ধরে নাইট ক্রিমের উপাদানগুলি তার কাজ বেশি সময় ধরে করতে পারবে এবং ক্রিমটি ত্বকের গভীরে প্রবেশ করতে পারবে বলেই নাইট ক্রিমের ব্যবহার হয়ে থাকে। আপনার ত্বকের চাহিদা অনুসারে উপরের দু’টির মধ্যে থেকে যে কোন প্রকারের একটি নাইট ক্রিম নির্বাচন করতে পারে। ঠিক কোন বয়স থেকে নাইট ক্রিম ব্যবহার করা উচিৎ?
আপনি যদি ত্বকের সঠিকভাবে যত্ন নিয়ে থাকেন এবং নিয়ম করে প্রতিদিন ভালোভাবে ক্লিজিং টোনিং ময়েশ্চারাইজিং পরপর মেনে করেন তাহলে আপনার ত্বকে এ ধরনের সমস্যা হবে না। অর্থাৎ বয়সের ছাপ বা আর্দ্রতার অভাবের মতো সমস্যার সম্মুখীন আপনাকে হতে হবে না। তাই যতো দিন পারা যাই আলাদা করে নাইট ক্রিম ব্যবহার করা থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখুন। যখনই মনে হচ্ছে ত্বকের সঠিক যত্ন আপনি নিতে পারছেন না, সারা দিন এতো ব্যস্ত যে নিজের জন্য সময়টুকু নেই, তখনই আপনি নাইট ক্রিমের কথা ভাবতে পারেন। এছাড়াও যারা সারা দিন এয়ার কন্ডিশন ঘরে কাজ করছেন, বাড়ি ফিরে মনে হচ্ছে, ত্বকের জন্য একটু বাড়তি আর্দ্রতার দরকার আছে, অথবা আপনি রাতে এয়ার কন্ডিশন ঘরে শুতে যাচ্ছেন, সেই ক্ষেত্রে আপনি নাইট ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন। তবে ২৫/২৬ বছরের আগে নাইট ক্রিমের কোন প্রয়োজন নেই। আর যাদের আমার মতো মনে হচ্ছে যে, না এখন থেকে নাইট ক্রিম ব্যবহারের প্রয়োজন আছে, তাহলে তাদের জন্য আমার সাজেশন থাকবে, আগে দেখে নিন আপনার ত্বকে ঠিক কি ধরনের নাইট ক্রিম প্রয়োজন। এন্টি এজিং নাইট ক্রিম নাকি ডীপ ময়শ্চারাইজিং নাইট ক্রিম। নাইট ক্রিম নিজের প্রয়োজন বুঝে ব্যবহার করুন। যখনই কোন নাইট ক্রিম বা অন্যান্য কোন ক্রিম বা বিউটি প্রোডাক্ট কিনবেন, সব সময় ভাল কোম্পানীর বা ব্যান্ডের নাম দেখে কেনার চেষ্টা করবেন। কেনার আগে জিনিসটির অবশ্যই একবার রিভিউ দেখে নেবেন। স্রোতের সঙ্গে গাঁ ভাসিয়ে বা কারও অন্ধ অনুকরণ করেও বিউটি প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে যাবেন না।”,

Leave a Reply

Back to top button
Close