International

নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ঘেরাটোপ, আজ শপথ নিতে চলেছেন বাইডেন

ওয়াশিংটন: নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তারমধ্যে দিয়ে আজ বুধবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬ তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নিতে চলেছেন জো বাইডেন। তাঁর শপথ অনুষ্ঠান ঘিরে নিররাপত্তা বেষ্টনীতে ঘিরে রাখা হয়েছে ওয়াশিংটন।

এবারের শপথ অনুষ্ঠান প্রত্যেকবারের থেকে একবারে আলাদা। কার্যত সেনা ছাউনিতে পরিণত হয়ে গিয়েছে ওয়াশিংটন ডিসি। যেখানে প্রতিবার লক্ষ লক্ষ মানুষ অভিষেক অনুষ্ঠানে আসে, সেখানে এবার ভারী গামবুটের শব্দ। ২৫ হাজার সেনা রয়েছে নিরাপত্তার খাতিরে।

আরও পড়ুন – ভিন জাতে বিয়ে, খাপের নিদানে আড়াই লক্ষ টাকার জরিমানা চাপাল দম্পতির ঘাড়ে

হোয়াইট হাউজ থেকে শপথ অনুষ্ঠান বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম সরাসরি সম্প্রচার করার কথা রয়েছে। লক্ষ লক্ষ মানুষের জায়গায় এবার থাকছে প্রায় ২ লক্ষ পতাকা। রয়েছে ৪০০ আলোকস্তম্ভ। করোনার জেরে আমেরিকায় যে কয়েক লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়েছে, তাঁদের কথা স্মরণে রেখেই এই পতাকা ও আলোকস্তম্ভের ব্যবস্থা।

জানা গিয়েছে, বাইডেনের এই অভিষেক অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবে পাঁচশো থেকে হাজারখানেক অতিথি, যাঁদের অধিকাংশই কংগ্রেস সদস্য ও বাইডেন-হ্যারিস পরিবারের লোকজন। বাইডেনের শপথ গ্রহণের ঘন্টা তিনেক আগে ডোনাল্ড ট্রাম্প স্ত্রী মেলানিয়াসহ ওয়াশিংটন ছেড়ে চলে যাবেন ফ্লোরিডায়।প্রেসিডেন্টের বিমান এয়ারফোর্স ওয়ানে চড়ে তিনি ফ্লোরিডা যাবেন বলে জানা গিয়েছে। অন্যদিকে শপথ নেওয়ার পরেই নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সপরিবারে হোয়াইট হাউজে উঠবেন।

আরও পড়ুন – ‘ভোটের আগে লেনিন ভরসা’ তৃণমূলের, খড়গপুরের বিধায়কের গলায় মেহনতি মানুষের কথা

পেন্টাগন সূত্রে এখন পর্যন্ত খবর, বাইডেনের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যে হামলা চালানো হতে পারে এমন কোনও খবর এখন পর্যন্ত নেই। কিন্তু নিরাপত্তায় সামান্য ফাঁক ফোকর রাখতে রাজি না গোয়েন্দা বিভাগ।

আর্মি সেক্রেটারি রায়ান ম্যাকার্থি জানিয়েছেন, ওয়াশিংটনের বেশিরভাগ রাস্তা এবং মেট্রো স্টেশনগুলো বন্ধ রাখা হচ্ছে। ভার্জিনিয়া থেকে শহরে আসার রাস্তাও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে একেবারে অভেদ্য নিরাপত্তার বলয় মুড়ে রয়েছে ওয়াশিংটনকে।

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.
হ্যাঁ, আমি অনুদান করতে ইচ্ছুক >

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।

Back to top button