আন্তর্জাতিক

পেন্টাগনের সেই UFO ভিডিও-র সত্যতা স্বীকার করল মার্কিন নৌসেনা – আগাম বার্তা

ওয়াশিংটন: গত বছর প্রকাশ্যে আসে এক চাঞ্চল্যকর ভিডিও। যেখানে দেখা যায়, এক বিশেষ উড়ন্ত বস্তুর মুখোমুখি হয়েছে মার্কিন যুদ্ধবিমান। যেটি নাকি UFO হতে পারে বলেও মনে করা হচ্ছিল। এমনকি সেই বস্তু নিয়ে দীর্ঘদিন গোপনে তদন্তও চালিয়েছে পেন্টাগন। আমেরিকার তরফে অবশ্য সরকারিভাবে সেই তদন্তের কথা কনও জানানো হয়নি। তবে এবার সেই উড়ন্ত বস্তুর কথা স্বীকার করে নিল মার্কিন নৌবাহিনী।

সম্প্রতি মার্কিন নৌসেনার এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ওই ভিডিওটি সত্যি। ওরকম একটি উড়ন্ত বস্তু দেখা গিয়েছিল, সেকথাও জানান তিনি। মার্কিন নৌসেনার ‘নাভাল অপারেশন ফর ওনফরমেশন ওয়ারফেয়ার’-এর উপপ্রধানের মুখপাত্র জোসেফ গ্রাডিশের জানান, ওই ভিডিওতে যেটি দেখা যাচ্ছে , সেটিকে “Unidentified Aerial Phenomena.” হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে।

ওই উড়ন্ত বস্তু আসলে কী, সেটা অবশ্য স্পষ্ট করে জানানি মার্কিন নেভি অফিসার। কিন্তু তাঁর মতে, এগুলি সাধারণত ড্রোন হয়ে থাকতে পারে, ভিনগ্রহীদের স্পেশক্রাফট বা UFO বলতে নারাজ তাঁরা। আর এর আগে প্রকাশিত ভিডিওগুলি সঠিক বলে মেনে নিলেও, সেগুলি যে মার্কিন প্রশাসনের তরফে প্রকাশ করা হয়নি, সেকথাও উল্লেখ করেন তিনি।

এর আগে গত বছর, পেন্টাগনের প্রকাশ করা গোপন ইউএফও ফাইল থেকে নেওয়া একটি ভিডিও প্রকাশ করেন পেন্টাগনের এক প্রাক্তন গোয়েন্দা অফিসার লুইস এলিজোন্দো।

২০১৫ সালে আমেরিকার পূর্ব উপকূলে ঘটেছিল সেই ঘটনা।

৩৫ সেকেন্ডের সেই ভিডিওতে দেখা গিয়েছিল, আকাশে হঠাত্‍ ডিমের মতো সাদা এক বস্তুর মুখোমুখি হয় মার্কিন নৌবাহিনীর যুদ্ধ বিমান। পাইলট বলছেন, ”এটা কী?” সহ পাইলটকে তিনি বলছেন, ”দেখো, দেখো, ওটা কী উড়ে যাচ্ছে?”

জানা যায়, আমেরিকার বিভিন্ন প্রান্তের আকাশে ইউএফও-র গতিবিধির উপর নজর রাখতে ২০০৭ সাল থেকে ২০১২ পর্যন্ত একটি গোপন কর্মসূচী ছিল পেন্টাগনের। যার নাম- ‘অ্যাডভান্সড এভিয়েশন থ্রেট আইডেন্টিফিকেশন প্রোগ্রাম’।

‘দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট’-এর সাংবাদিক জোবি ওয়ারিক তাঁর প্রতিবেদনে লিখেছিলেন, ”পেন্টাগন বা ‘অ্যাটিপ’-এর কোনও কর্মকর্তাই পৃথিবীতে ভিনগ্রহীদের আসা-যাওয়ার কোনও তথ্যপ্রমাণ দিতে পারেননি। একাধিক প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও উচ্চ পর্যায়ের কোনোভাবে টনক নড়ানো যায়নি বলেও উল্লেখ করেন তিনি। ভিডিওগুলি প্রকাশ করবেন বলেই পেন্টাগনের চাকরি ছেড়ে দেন গোয়েন্দা অফিসার লুইস এলিজোন্দো।

Leave a Reply

Back to top button
Close