International

ফেসবুকে বন্ধ করল ১৬,০০০ ভুয়ো অ্যাকাউন্ট

ক্যালিফোর্নিয়া: ফেসবুক তাদের মাধ্যম থেকে ১৬,০০০ ভুয়ো অ্যাকাউন্ট বন্ধ করেছে। এই যোগাযোগ মাধ্যম সংস্থা তার প্ল্যাটফর্মে পণ্য ও পরিষেবাদির বিক্রয় বা কেনার জন্য নকল পর্যালোচনা করার কারণে অ্যাকাউন্ট বন্ধ সিদ্ধন্ত নিয়েছে। মনে করা হচ্ছে যুক্তরাজ্যে সোশ্যাল মাশ্যমে নজরদারির পরে এই পদক্ষেপ ।

যুক্তরাজ্যে প্রতিযোগিতা এবং বাজার কর্তৃপক্ষের (সিএমএ) শুক্রবার জানিয়েছে ফেসবুক তাদের আরও একটি মাধ্যম ইনস্টাগ্রাম থেকেও নানা ভুয়ো পরিশোধিত সামগ্রী সনাক্তকরণ, অপসারণ এবং প্রতিরোধের জন্য আরও পরিবর্তন প্রক্রিয়া শুরু করেছে গ্রাহকদের সুবিধার কথা ভেবে।

ফেসবুকের এক প্রতিনিধি জানিয়েছে, এই এই সমস্যাটি সমাধানের জন্য সিএমএর সাথে ব্যাপকভাবে জড়িত রয়েছে তারা। এর পাশাপাশি জাল রিভিউ সরবরাহ বা বাণিজ্য সহ ফেসবুক মাধ্যমে প্রতারণামূলক ক্রিয়াকলাপের কোনও অনুমতি নেই বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

মাধমগুলিতে গ্রাহকদের পর্যালোচনা বিভ্রান্ত করার জন্য ক্রমবর্ধমান মার্কেটপ্লেসের প্রমাণ পাওয়া পরে সিএমএ ২০১৯ সাল থেকে মিথ্যা পর্যালোচনাগুলির বিরুদ্ধে ক্র্যাকডাউন শুরু করে। পাশাপাশি এই একই সময় ফেসবুক এবং ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম ইবেকে তাদের ওয়েবসাইটগুলি প্রথম পরীক্ষা করার কথা জানিয়েছিলো সিএমএ ।

এর পাশাপাশি জিআইএফ ওয়েবসাইট জিপির প্রযুক্তি সংস্থার অধিগ্রহণ নিয়ে অবিশ্বাসের উদ্বেগের কারণেও সিএমএ কর্তৃক ফেসবুকের তদন্তও করছে। এই সংস্থা ডেটা ভাগ করে নেওয়া এবং জাল সংবাদ এবং ঘৃণাত্মক বক্তব্যের মতো অপরাধের জন্য বিশ্বজুড়ে চাপের মুখে রয়েছে।

সিএমএ চিফ এক্সিকিউটিভ আন্দ্রেয়া কসেলেলি জানিয়েছে, বিশ্বজুরে করোনার কারণে সাধারণ মানুষ অনলাইন কেনাকাটার উপরে নির্ভরশীল হয়ে রয়েছে। আর সেই ক্ষেত্রে তারা নানা সামগ্রীর সম্পর্কে ভালো ভাবে জেনে সেই পণ্যটি কিনে থাকে। এর কারোণে ভুয়ো রিভিউ একটা ক্রেতার অনেক ক্ষতি করতে পারে।

৭ এপ্রিল বুধবার ইউনাইটেড কিংডম অর্থাৎ যুক্তরাজ্য সোশ্যাল মাধ্যমগুলির ওপর একটি নিয়ন্ত্রক চালু করেছে। তারা জানিয়েছে এই নতুন নিয়মের ফলে ফেসবুক মতো প্রযুক্তিবিদরা তাদের বাজারের আধিপত্যের প্রতিযোগিতা বাড়াতে সক্ষম হবে। পাশাপাশি যাতে অনলাইনের বিভিন্ন নতুন দিক দমিয়ে না যায় সেদিকে নজর রাখা হবে।

যুক্তরাজ্যের প্রতিযোগিতা এবং মার্কেটার অথারিটির(সিএমএ) মধ্যে থাকা দ্যা ডিজিটাল মার্কেট ইউনিট (ডিএমইউ) গ্রাহকদের তাদের ডেটাগুলির উপর আরও পছন্দ এবং নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি, অনলাইন প্রতিযোগিতার প্রচার করার এবং অন্যায়ের অনুশীলনগুলিতে ক্র্যাক ডাউন করার পরিকল্পনার তদারকি করবে। এছাড়াও ব্যবসায়ীদের ছেড়ে দেওয়া হবে নিজেদের পছন্দ এবং আরও ব্যয়বহুল পণ্য এবং পরিষেবা জন্য। আর ইউকে সরকারের এই পদক্ষেপের পরে ফেসবুক ভুয়ো অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেই।

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.
হ্যাঁ, আমি অনুদান করতে ইচ্ছুক >

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।

Back to top button