Cricket

বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের নতুন হেড কোচ সিলভারউড –

লন্ডন: ইংল্যান্ডকে প্রথমবার ওয়ান ডে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন করা ট্রেভর বেলিস অ্যাশেজ সিরিজের পরেই রুট-মর্গানদের হেড কোচের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নিয়েছেন। স্বাভাবিকভাবেই ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের প্রয়োজন ছিল নতুন একজন হেড স্যারের। ইসিবি খোঁজ শুরু করেছিল বেশ কিছুদিন ধরেই। অবশেষে বেলিসের উত্তরসূরি বেছে নিল ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড।

লড়াইয়ে সবার আগে ছিলেন প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়ক অ্যালেক স্টুয়ার্ট। দৌড়ে ছিলেন ভারতকে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন করা গ্যারি কার্স্টেনও। তবে দু’জনকে টপকে ইংল্যান্ডের হেড কোচের পদে বসে পড়লেন ক্রিস সিলভারউড। বেলিসের সহকারি হিসেবে দীর্ঘদিন কাজ করা সিলভারউডেই আস্থা রাখে ইংল্যান্ডের কোচ বাছাইয়ের দায়িত্বে থাকা অ্যাশলে জাইলসরা। ইন্টারভিউয়ে নির্বাচক প্যানেলকে চমৎকৃত করার সুবাদে বোলিং কোচ থেকে হেড কোচের পদে উন্নীত হলেন সিলভারউড।

ইংল্যান্ডের নতুন হেড কোচ বাছাইয়ের দায়িত্বে ছিলেন ইসিবি’র চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার টম হ্যারিসন, ম্যানেজিং ডিরেক্টর অফ মেনস ক্রিকেট অ্যাশলে জাইলস ও হেড অফ কোচ ডেভেলপমেন্ট জন নেয়াল। নতুন কোচের নাম ঘোষণা করে জাইলস বলেন, ‘ইন্টারভিউয়ে সিলভারউড লাল ও সাদা বলের ক্রিকেটের জন্য নিজের পরিকল্পনার পরিচ্ছন্ন একটা ধারণা দিতে পেরেছে। দুই ক্যাপ্টেনের সঙ্গেই ওর ব্যক্তিগত সম্পর্ক দারুণ। প্রতিটি কাউন্টি দলের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সংযোগ রয়েছে সিলভারউডের। তাছাড়া ক্রিকেটাররা অত্যন্ত সম্মান করে ওকে। এই অবস্থায় ওকেই আমাদের প্রথম পছন্দ মনে হয়েছে।’

১৯৯৬ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত ইংল্যান্ডের হয়ে ৬টি টেস্ট ও ৭টি ওয়ান ডে খেলেছেন সিলভারউড। দীর্ঘ ১৩ বছর ইয়র্কশায়ারের হয়ে কাউন্টি ক্রিকেট খেলার পর কেরিয়ারের শেষ তিন বছর তিনি কাটিয়েছেন মিডলসেক্স। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ৫৭৭টি উইকেট রয়েছে তাঁর। খেলা ছাড়ার পর ২০১০ সালে কোচিং স্টাফ হিসেবে এসেক্সের সঙ্গে যুক্ত হন তিনি। ২০১৬ সালে তিনি এসেক্সের হেড কোচ নিযুক্ত হন। ২০১৭ সালে সিলভারউডের কোচিংয়েই এসেক্স কাউন্টি চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পাশাপাশি টি-২০ ব্লাস্টের খেতাব জেতে।

Leave a Reply

Back to top button
Close