International

ভারত থেকে ফিরলেই হতে পারে ৫ বছরের জেল অথবা জরিমানা, ঘোষণা অস্ট্রেলিয়ার

সিডনি : কোনওভাবেই রাশ টানা যাচ্ছে না সংক্রমণে। দেশের দৈনিক করোনার গ্রাফ সাড়ে তিন লক্ষ পেরিয়ে এবার পৌঁছে গেল ৪ লক্ষে। বিশেষজ্ঞরা বলেছিলেন, মে মাসে করোনা সংক্রমণ শীর্ষে গিয়ে পৌঁছবে। দৈনিক করোনা গ্রাফ সেই কথাই প্রমাণ করছে।

এদিকে দেশে প্রতিনিয়ত যেভাবে সংক্রমণ বেড়ে চলেছে তাতে ক্রমশ চাপ বাড়ছে স্বাস্থ্য পরিষেবার উপর। এই অবস্থায় অস্ট্রেলিয়া সরকারের তরফে ঘোষনা করা হয়েছে যে , কোনও ব্যাক্তি বিগত ১৪ দিন ভারতে থাকার পর অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশ করতে পারবেন না। যদি এই নিয়ম অমান্য করা হয়, তবে মোটা অঙ্কের জরিমানা, সহ পাঁচ বছরের হাজতবাসও হতে পারে ।

করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে ভারতে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে অন্যান্য দেশ থেকে আগতদের মধ্যে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা।  সেই হিসাবেই ইতিমধ্যে, ব্রিটেন, কানাডা, আমেরিকা, দুবাই ভারতের সঙ্গে উড়ান চলাচল আপাতত স্থগিত রখেছে। রেড তালিকাভুক্ত করা হয়েছে ভারতকে।

এই অবস্থায় সংক্রমণের দাপট ঠেকাতে করোনাকালে এই প্রথম অস্ট্রেলিয়ার তরফে এইধরনের সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করা হল।

 শুক্রবার অস্ট্রেলিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী গ্রেগ হান্ট বলেন, “আগামী ৩ মে থেকে এই নিয়ম কার্যকর হচ্ছে এবং অস্ট্রেলিয়ার নাগরিকেরা এই নিয়ম ভঙ্গ করলে কড়া শাস্তির মুখে পড়বে।”

তিনি আরও জানান, আগামী ১৫ মে-র পর পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

তবে অস্ট্রেলিয়ার এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ হয়েছেন সেখানে বসবাসকারী ভারতীয়রা এবং বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন। অস্ট্রেলিয়ার হঠাৎ এমন সিদ্ধান্তে ভারতে আটকে পড়েছেন নয় হাজারেরও বেশি অস্ট্রেলিয়ান। এরমধ্যে অন্তত ৬৫০ জন ভারতীয় বংশোদ্ভূত অস্ট্রেলিয়ানও রয়েছেন।

অন্যদিকে, গত বছর মার্চ থেকে সারাবিশ্বে করোনা ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই সংক্রমণ রুখতে অনাগরিকদের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার সীমান্ত। বন্ধ রয়েছে আন্তর্জাতিক উড়ান পরিষেবা। তারপরেও সেখানে মোট করোনা সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ছুঁয়েছে ২৯,৮০০। করোনায়  প্রাণ হারিয়েছেন ৯১০ জন।

উল্লেখ্য,  কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪ লক্ষ ১ হাজার ৯৯৩ জন। এখনও পর্যন্ত দেশে মোট আক্রান্ত হয়েছে ১ কোটি ৯১ লক্ষ ৬৪ হাজার ৯৬৯ জন। করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ছাড়িয়ে গিয়েছে সাড়ে তিন হাজার। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার বলি হয়েছেন ৩ হাজার ৫২৩ জন। সব মিলিয়ে দেশে এখনও পর্যন্ত ২ লক্ষ ১১ হাজার ৮৫৩ জনের মৃত্য হয়েছে। অ্য়াক্টিভ মামলার সংখ্যা ৩২ লক্ষ ৬৮ হাজার ৭১০। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ লক্ষ ৯৯ হাজার ৯৮৮ জন। এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন মোট ১ কোটি ৫৬ লক্ষ ৮৪ হাজার ৪০৬ জন। এখনো পর্যন্ত ১৫ কোটি ৪৯ লক্ষ ৮৯ হাজার ৬৩৫ জনকে টিকাকরণ করা হয়েছে।

করোনা সংক্রমণে রাশ টানতে দেশজুড়ে টিকাকরণ চলছে। আজ থেকে ১৮ বছরেরে ঊর্ধ্বদের টিকাকরণ শুরু হয়েছে। যদিও একাধিক রাজ্যে এই কর্মসূচি আপাতত স্থগিত। একাধিক রাজ্য জানিয়ে দিয়েছে তাদের হাতে পর্যাপ্ত পরিমাণ টিকা নেই। ফলে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বদের টিকা দেওয়া তাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। ফলে করোনা যখন ভয়াবহ, তখনও সুরক্ষার জন্য টিকাকরণ সম্ভব হচ্ছে না। শুক্রবার সকাল পর্যন্ত ২.৪ লক্ষেরও বেশি মানুষ Co-Win অ্যাপে টিকাকরণের জন্য রেজিস্ট্রেশন করিয়েছেন। তার মধ্যে ২৮ এপ্রিল, প্রথম রেজিস্ট্রেশনের দিন ১.৩৭ কোটি মানুষ এবং ২৯ এপ্রিল দ্বিতীয় রেজিস্ট্রেশনের দিন ১.০৪ কোটি মানুষ নিজেদের নাম নথিভুক্ত করেছেন। কিন্তু তাঁদের টিকাকরণ নিয়ে দেখা গিয়েছে সংকট। বিশেষ করে দিল্লি ও মহারাষ্ট্রে ভ্যাকসিনের সবচেয়ে বেশি আকাল দেখা দিয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.
হ্যাঁ, আমি অনুদান করতে ইচ্ছুক >

Back to top button