আন্তর্জাতিক

ভারত-পাক সম্পর্ক আগের চেয়ে কম উত্তপ্ত, জানালেন ডোনাল্ড ট্রাম্প – আগাম বার্তা

ওয়াশিংটন: ধীরে ধীরে খোলস ছাড়ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কাশ্মীর ইস্যুতে ভারত-পাক সম্পর্ক নিয়ে অনেক জলঘোলা হয়েছে। দুই দেশের বন্ধুত্ব ফেরাতে মধ্যস্ততার বিষয়টি এলেও তা খুব লাভজনক হয়নি। পৃথিবীর শক্তিশালী দেশগুলির পাশে বসে নরেন্দ্র মোদীকে আবার কাশ্মীর দ্বিপাক্ষিক বিষয় বলে দুই দেশকে আলোচনা করতে বলেন। তবে এবার ঠিক কিছুটা উল্টো কথাই বললেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

হোয়াইট হাউস থেকে তিনি বলেন, ভারত ও পাকিস্তানের সম্পর্ক গত দুই সপ্তাহ আগের থেকে এখন কিছুটা কম উত্তপ্ত। এর কিছুদিন আগেই তিনি দক্ষিণ এশিয়ার এই দুই দেশের মধ্যে মধ্যস্ততা করতে চেয়েছিল।

জি৭ সামিটের প্রায় সপ্তাহ দুয়েক পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট এই মন্তব্য করলেন। অগাস্টের ২৬ তারিখ মোদী-ট্রাম্প ফ্রান্সে দেখা করেন। তারপরই তিনি শমবার বলেছেন, “ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে দন্দ্ব চলছে। আমার মণে হয় এখন বিষয়তী আগের মতন আর উতপ্ত নয় বা তার চেয়ে কিছুটা কম।”

নরেন্দ্র মোদী সরকারের স্পেশাল স্ট্যাটাস মুছে ফেলার সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছে পাকিস্তান। আন্তর্জাতিক সম্পর্কেও এসেছে তিক্ততা। ভাঁটা পরেছে ভারত-পাক বন্ধুত্বে। তাই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মধ্যস্ততার পথ ছাড়তে চাইছেন ও সরাসরি কথোপকথনকে সমর্থন জানিয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে ভারত-পাকিস্তানের পরিস্থিতি সম্পর্কে তাঁর মূল্যায়নের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তার জবাবে তিনি বলেন, “আমার দুই দেশের সঙ্গেই খুব ভাল সম্পর্ক রয়েছে। যদি দুই দেশই চায় তবে আমি তাঁদের এ বিষয়ে সহায়তা করতে রাজি আছি। তাঁরাও এটা জানে। এটাই প্রস্তাব দিয়েছি।”

ডোনাল্ড ট্রাম্প পরিচালিত সরকারকে তাঁরা ‘সক্রিয় ভূমিকা’ নেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। সেখানেই ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তাপ কিছুটা হলেও কিভাবে কমানো যায় সেই বিষয়ও কথা হয় তাঁদের মধ্যে।

কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপের আগে থেকেই কাশ্মীর সমস্যায় ঢোকার চেষ্টা করছিল ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে তা বরাবরই অস্বীকার করে এসেছে ভারত। এমনকি ফ্রান্সে জি৭ এর বৈঠকেও ট্রাম্পের সামনে বসেও সরাসরি সেই কথাই বলে দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

Leave a Reply

Back to top button
Close