International

ভয়ঙ্কর ভূমিকম্পে কাঁপলো জাপান! নেই সুনামি ঝুঁকি

টোকিও: ভয়াল ভূমিকম্পে (Earthquake) কেঁপে উঠল জাপান। শনিবার জাপানের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে কম্পন অনুভূত হয়। জানা যাচ্ছে, রিখটার স্কেলে কম্পনের তীব্রতা ছিল ৬.৮। ভারতীয় সময় শনিবার সকাল ৭টার দিকে ভয়াবহ এ কম্পনে কেঁপে ওঠে দেশটি।এর উৎপত্তিস্থল ছিল ইশিনোমাকি শহর থেকে ৩৮ কিলোমিটার দূরে। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা এ তথ্য জনিয়েছে।

ভূমিকম্পের ফলে জাপানের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ভূমিধসের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। তবে কোনও সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়নি এখনও। ভয়াল এই ভূমিকম্পে হতাহতেরও কোনো খবর পাওয়া যায়নি। ভূমিকম্প কেন্দ্রস্থলের কাছাকাছি অবস্থিত ওনাগাওয়া পারমাণবিক কেন্দ্র। তবে কম্পনের কারণে সেখানে কোনো সমস্যা তৈরি হয়নি বলে জানিয়েছে ওই পারমানবিক সংস্থা।

ভূমিকম্পে জাপানের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত সেন্দাই শহরের কয়েকটি বাড়ি ভয়ানকভাবে দুলতে দেখা যায়। আতঙ্কিত হয়ে মানুষজন বাইরে বেরিয়ে আসে। কম্পনের কেন্দ্রস্থল থেকে প্রায় ৪০০ কিলোমিটার দূরে টোকিওতেও এই কম্পন অনুভূত হয়।ভূমিকম্পের জেরে বন্ধ রয়েছে জাপানের উত্তরাঞ্চলীয় বুলেট ট্রেন সেবা। সেটি আবার কখন চালু হবে তা এখনো নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি।

গত মার্চে ভয়াল ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছিল জাপান। রিখটার স্কেলে কম্পনের তীব্রতা ছিল ৭.২। কম্পনের জেরে সুনামি পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল।তবে তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। উল্লেখ্য, ১০ বছর আগে ২০১১ সালের ১১ মার্চ বিধ্বংসী ভূমিকম্পে তছনছ হয়েছিল সে দেশ। সে বার রিখটার স্কেলে কম্পনের তীব্রতা ছিল ৯। গতমাসেই ভূমিকম্পে কেঁপেছিল জাপান। ওই ঘটনায় বেশ কয়েকজন জখম হন।জাপানের ভৌগলিক অবস্থান প্রশান্ত মহাসাগরের ‘রিং অব ফায়ার’ অঞ্চলে হওয়ায় দেশটিতে মাঝেমধ্যেই ভূমিকম্প আঘাত হানে।

অপরদিকে কয়েকমাস আগে বড়সড় ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে নিউজিল্যান্ড। রিখটার স্কেলে কম্পনের তীব্রতা ছিল ৭.২। নিউজিল্যান্ডের উত্তর আইল্যান্ডে কম্পন অনুভূত হয়। ভূমিকম্পের জেরে এলাকায় সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়। জানা যায়, সমুদ্র উপকূলের ৩০০ কিমির মধ্যে আছড়ে পড়তে পারে ঢেউ।চলতি সপ্তাহে আসামে ভূমিকম্প অনুভূত হয়। রিখটার স্কেলে মাত্রা ছিল ৬.৮। ভূমিকম্পের ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ১৮বার আফটার শক অনুভূত হয়।

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.
হ্যাঁ, আমি অনুদান করতে ইচ্ছুক >

Back to top button