International

মারুতির বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠল জোর করে বিমা করানোর

নয়াদিল্লি: গাড়ি কেনার সময় ক্রেতাদের তাদের পছন্দের বিমা প্রকল্প কেনানোর জন্য জোর করছে মারুতি সুজুকির বলে অভিযোগ ওঠায় এ নিয়ে তদন্ত শুরু করল কম্পিটিশন কমিশন অফ ইন্ডিয়া (সিসিআই)। সংবাদসংস্থা রয়টার্সকে এমনটাই জানিয়েছে গাড়ি সংস্থাটির দুই কর্তা ৷
গত জুনে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ক্রেতা সিসিআই-এর কাছে এমন অভিযোগ করেন৷ গাড়ি কেনার সময় ক্রেতাদের এমন বিমা সংস্থার প্রিমিয়াম দিতে বলা হচ্ছে যাতে অন্যদের তুলনায় প্রিমিয়াম বেশি৷ এমন অভিযোগের ভিত্তিতে মারুতির বিরুদ্ধে কোনও বিমা সংস্থার সঙ্গে আদৌ ‘চুক্তি’ করে এই কাজ করেছে কিনা সেটা খতিয়ে দেখছে সিসিআই। সংশ্লিষ্ট সংস্থাটির সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী মারুতি তাদের বিমা বা লুব্রিক্যান্টের প্রচার চালাচ্ছে কিনা সেটার অনুসন্ধান চালানো হচ্ছে।
ভারতীয় আইন অনুযায়ী, এই ধরনের কার্যকলাপ প্রতিযোগিতার পরিবেশ নষ্ট করে । ক্রেতাদের পছন্দকে এ ভাবে সীমিত পরিসরে বেঁধে ফেলা অথবা প্রতিযোগিতার পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা একেবারে বেআইনি।
সিসিআই-এর এক আধিকারিক জানিয়েছেন, কমিশন এখন গোটা বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখছে৷ তবে এই তদন্তের কাজ করতে কিছুটা সময় লাগবে। এদিন এ নিয়ে রয়টার্সের পক্ষ থেকে পাঠানো চিঠির উত্তরে মারুতির মুখপাত্র জানিয়েছেন, সিসিআই যে তদন্ত করছে এমন কোনও অভিযোগের খবর তাঁদের জানা নেই।

অবশ্য সিসিআই-এর পক্ষ থেকেও কোনও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। অভিযোগ ভিত্তিহীন বুঝলে এখনই তা যেমন ছুড়ে ফেলে দিতে পারে সিসিআই, তেমনই আবার প্রয়োজন বুঝলে তদন্তকারী শাখার মাধ্যমে গভীর ভাবে অনুসন্ধান চালাতে পারে কমিশন।

তবে ইতিমধ্যেই মারুতির বিরুদ্ধে এদেশে একটি বিশ্বাসভঙ্গের তদন্ত চলছে। গত বছরে ডিলার সংস্থাগুলির ছাড় দেওয়ার সীমা বেঁধে দিতে বলা হয়েছিল বলে অভিযোগ রয়েছে এই গাড়ি প্রস্তুতকারী সংস্থাটির বিরুদ্ধে। এই ধরনের সিদ্ধান্ত যে ক্রেতাস্বার্থ বিরোধী এবং তা বেআইনি হওয়ায় তদন্ত শুরু করেছে সিসিআই। সেক্ষেত্রে নতুন অভিযোগের ভিত্তিতে গভীর ভাবে তদন্তের প্রয়োজন মনে করলে তা বর্তমান তদন্তের সঙ্গে যোগ করার নির্দেশও দেওয়া হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে ।
প্রসঙ্গত, এর আগে কোরিয়ার গাড়ি প্রস্তুতকারী সংস্থা হুন্ডাই মোটর কোম্পানির বিরুদ্ধেও এমন অভিযোগ উঠেছিল। কারণ একটি বিমা সংস্থার সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে তাদের প্রকল্প বিক্রিতে হুন্ডাই জোর দিয়েছিল তখন অভিযোগ আসায় তদন্ত শুরু করেছিল সিসিআই। যদিও সে তদন্তে ক্রেতা স্বার্থ নষ্ট হচ্ছে বলে তেমন কিছু পাওয়া যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close