offbeat news

রেস্তোরাঁয় লুকিয়ে থাকতে পারে বিপদ, কী করা যাবে, কোনটা নয়

করোনা ভাইরাস আপাতত সঙ্গেই থাকছে। এরকমটা ধরে নিয়েই জীবন এগোতে শুরু করেছে। লকডাউনের পর শুরু হয়েছে আনলকের পর্ব। খুলছে রেস্তোরাঁ। খেতেও যাচ্ছেন অনেকেই। খাবার থেকে করোনা ছড়ানোর সম্ভাবনা কম ঠিকই। তবে রেস্তোরাঁয় খেতে যাওয়া কী সত্যিই নিরাপদ?
১. রেস্তোরাঁর প্রত্যেক স্টাফের মুখে মাস্ক আছে কিনা, তা দেখে নেওয়া দরকার। যদি ঢুকে দেখেন ওয়েটারদের মুখে মাস্ক নেই, তৎক্ষণাৎ সেই রেস্তোরাঁ ছেড়ে বেরিয়ে আসাই ভালো।
২. ভাইরাস থাকতে পারে টেবিলে। এক জনের খেয়ে যাওয়ার পর যদি ঠিক ভাবে টেবিল স্যানিটাইজ না করা হয়, তাহলেই বিপদ। টেবিলে রাখা কেচ আপ বা গোলমরিচের ডিব্বা থেকেও ছড়াতে পারে ভাইরাস।
৩. বিপদ আছে মেনু কার্ডেও। প্লাস্টিকের মেনু কার্ড, যা প্রত্যেক কাস্টমারকেই দেওয়া হয় এবং তাঁরা হাতে নিয়ে দেখেন, তাতেই লুকিয়ে থাকতে পারে ভাইরাস। তাই মেনু হাতে নেওয়ার আগে সেটা স্যানিটাইজ করা জরুরি।
৪. সবার জায়গা না থাকলে রেস্তোরাঁর লবিতে অপেক্ষা করা যাবে না। কারণ সেখানে জায়গা কম থাকে। তাই অপেক্ষা করতে হলে নিজের গাড়িতে বা পার্কিং লটে অপেক্ষা করতে হবে। ছোট জায়গায় সোশ্যাল ডিসট্যান্স রাখা সম্ভব নয়।

৫. পাশের টেবিলে অন্য কেউ বসে আছে কিনা দেখে নিন। দুটো টেবিলে বসা লোকজনের মধ্যে দূরত্ব থাকা দরকার। টেবিলের মাঝে অন্তত ৬ ফুট দূরত্ব থাকা দরকার।

৬. বদ্ধ পরিবেশে না থাকাই ভালো। অর্থাৎ যে রেস্তোরাঁয় খোলামেলা জায়গা আছে, সেখানে যাওয়াই ভালো।
৭. সবরকমের সাবধানতা অবলম্বন করা সত্বেও যদি দেখেন, বাফেটের অপশন খোলা আছে, তাহলে অন্য জায়গায় চলে যাওয়াই ভালো। কারণ, দেখা গিয়েছে একই প্লেট ব্যবহার হয় বলে বাফেটে বিপদ রয়েছে।

প্রশ্ন অনেক: তৃতীয় পর্ব

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close