offbeat news

সুস্থ হয়ে উঠলে কী ফের হতে পারে করোনা, কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা

নয়াদিল্লি: করোনার হানায় বদলে গিয়েছে স্বাভাবিক জীবনের ছন্দ। বদলে গিয়েছে দৈনিক রোজনামচা। তবুও সংক্রমণের আশঙ্কা এতটুকুও কমছে না। বরং করোনা থেকে মুক্তি পাওয়ার পরেও ফের কী করোনা সংক্রামিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে? যা নিয়ে শুরু হয়েছে নতুন সংশয়। এই অদৃশ্য ব্যাধি নিয়ে দোলাচলে ভুগছে চিকিৎসা মহল থেকে শুরু করে আমজনতা।
সম্প্রতি একটি মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত তথ্যে গবেষকরা জানিয়েছেন, করোনাভাইরাস থেকে পুরোপুরি সেরে ওঠার পরও ফের নতুন করে এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থেকেই যায়।
আর এক্ষেত্রে চিন এবং দক্ষিণ কোরিয়ার দেশ গুলিতে দেখা গিয়েছে, ওই সব দেশের বাসিন্দারা করোনাযুদ্ধ জয় করার পরও নতুন করে ফের একই রোগে সংক্রামিত হয়েছেন। বর্তমান আমাদের দেশ ভারতের ক্ষেত্রেও একই বিষয় লক্ষ্য করা গিয়েছে। সুতরাং হাসপাতাল হোক বা হোম আইসোলেশন, যতদিন না পর‍্যন্ত এই রোগের কোনও টিকা বা প্রতিষেধক আবিষ্কার হচ্ছে ততদিন এইরোগ থেকে পুরোপুরি ভাবে নিস্তার পাওয়া কার্যত অসম্ভব। এমনটাই দাবি চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের।
যারফলে করোনা থেকে সেরে ওঠার পর আবার কোনও ব্যক্তি পুনরায় সংক্রামিত হচ্ছেন কিনা সেটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন।
ওই রিপোর্ট থেকে আরও জানা গিয়েছে, পঁয়তাল্লিশ দিন বাদে করোনা থেকে মুক্তি পাওয়ার পর নয়ডার এক চিকিৎসক ফের করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন। একইভাবে মোহালি, হিমাচল প্রদেশ এবং কেরলের বেশকিছু ব্যক্তি করোনা থেকপ সেরে ওঠার পর নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। সেক্ষেত্রে বলা চলে, এই সমস্ত মানুষদের শরীরে যে অ্যান্টিবডি বা অন্যক্রমতা রয়েছে তা রোগ প্রতিরোধে যথেষ্ট নয়। বরং ইমিউনিটি পাওয়ার আরও কমিয়ে দেয়।
এই বিষয়ে বিশিষ্ট চিকিৎসক ডঃ আশিষ ভাল্লা এবং পিজিআইএমইআর চণ্ডীগড়ের ডঃ জিডি পুরী জানিয়েছেন, এই ভাইরাসের নতুন কোনও স্ট্রেন যতক্ষন না পর‍্যন্ত তৈরি হচ্ছে ততক্ষন এই ভাইরাস পুনরায় সংক্রামিত করবে।
ইউনাইটেড কিংডম থেকে প্রকাশিত স্বাস্থ্য সংক্রান্ত একটি জার্নালে বলা হয়েছে , যেসমস্ত রোগী করোনা থেকে সেরে উঠছেন তাঁদের শরীরে অ্যান্টিবডি ঠিকমতো কাজ না করলে কয়েকমাস পর ফের তাঁরা করোনা সংক্রমণের শিকার হতে পারেন। একই দাবি করেছে লন্ডনের কিং কলেজ এবং জার্মান বিশেষজ্ঞরা।

এবার আসুন জেনে নিই এই বিষয়ে কী বলছেন এইমসের ডিরেক্টর রনদীপ গুলেরিয়া।

ডঃ রনদীপ গুলেরিয়ার কথায়, ” পশ্চিমী দেশ গুলির তুলনায় ভারতীয়দের শরীরে অন্যক্রমতা অনেক বেশি। যারফলে ভারতে আক্রান্ত এবং সুস্থের হার তুলনামূলক ভাবে ইতালি,আমেরিকা বা ব্রাজিলের থেকে অনেক ভালো। শুধুতাই নয়, করোনায় আক্রান্ত হয়ে ভারতীয়দের মৃত্যুর হার আড়াই শতাংশের কম। এক্ষেত্রে আমাদের রক্তের টি-সেল কার্যকরী ভূমিকা পালন করছে।
তাহলে কী করোনা থেকে পুরোপুরিভাবে সেরে ওঠা সম্ভব নয়? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা
গবেষকদের দাবি, কোনও ব্যক্তি প্রথমবার করোনা সংক্রামিত হলে ফের তাঁর আবার সংক্রামিত হওয়ার আশঙ্কা থেকেই যায়। এক্ষেত্রে ত্রিশ দিন অথবা তার আরও পরে ফের করোনা টেস্ট করলে রক্তে করোনার জীবাণুর মিলবে।
সুতরাং কেউ করোনা থেকে সেরে উঠলেও তিনি যে পুরোপুরি রোগমুক্ত এমনটা ভাবা একেবারেই যুক্তিযুক্ত নয়। ফলে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর করোনা রোগীকে অন্তত ১৪ দিন হোম আইসোলেশনে থাকা জরুরি। এছাড়াও মাক্স ব্যবহার, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যাবতীয় সর্তকতা বিধি মেনে চলা বাঞ্ছনীয়।

প্রশ্ন অনেক: তৃতীয় পর্ব

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close