Saidpurসৈয়দপুর

সৈয়দপুরের তরুণীকে অপহরণের পর রংপুরে আটকে রেখে যৌন নির্যাতন, আটক হয়নি প্রধান আসামী – আগাম বার্তা

নীলফামারীনিউজ, ডেস্ক রিপোর্ট- নীলফামারীর সৈয়দপুর থেকে অপহৃত এক তরুণীকে রংপুর মহানগরী থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) সৈয়দপুর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে রংপুর মহানগরীর ধাপ এলাকার খলিফাটারী থেকে ওই নারীকে উদ্ধার করে। অপহরণকারীরা তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করায় ওই নারী শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পুলিশ তাকে উদ্ধারের পর সৈয়দপুর হাসপাতালে ভর্তি করে।

এব্যাপারে অপহৃতার পিতা হোটেল কর্মচারী মো. মমিদুল ইসলাম ওরফে চাইনিজ ৩ জনকে আসামী করে সৈয়দপুর থানায় মামলা করেছেন। এতে সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নের দক্ষিণ অসুরখাই গ্রামের মৃত গিয়াস উদ্দিন মাস্টারের পুত্র মো. রওশন হাবিব ওরফে বাবু (২৬), কিশোরগঞ্জ উপজেলার সোনালী ব্যাংক সংলগ্ন এলাকার মৃত রুহুল আমিনের পুত্র কিশোরগঞ্জ বাজারের ঢাকা হোটেলের মালিক মিজানুর রহমান মিজান (৪২) ও একই উপজেলার রণচন্ডি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মোখলেছুর রহমান ওরফে বিমানকে (৩৮) আাসামী করা হয়েছে।

ওই নারীকে উদ্ধারের সময় ওই কক্ষ থেকেই মামলার ২ নম্বর আসামী অপহরণকারী মিজানুর রহমানকে আটক করা হয়। আটক মিজানুর রহমান কিশোরীগঞ্জ বাজার সংলগ্ন সোনালী ব্যাংক এলাকার মোঃ রুহুল আমিনের ছেলে। তার কিশোরগঞ্জ বাজারে ঢাকা হোটেল নামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

ওই নারীকে অপহরণের ঘটনায় মূল হোতা সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নের দক্ষিণ অসুর খাই এলাকার মৃত গিয়াস উদ্দিন মাস্টারের ছেলে রওশন হাবিব ওরফে বাবু পলাতক রয়েছে।

মামলার বাদি সৈয়দপুর শহরের কাজীপাড়া এলাকার বাসিন্দা মো. মমিদুল ইসলাম ওরফে চাইনিজ (৪০) জানান, তাঁর মেয়ে (২১) বিবাহিত ও এক সন্তানের জননী। মেয়ের স্বামী চট্রগ্রামে কাজ করে। ঘটনার দিন গত ৫ জুলাই সকালে তাঁর মেয়ে বাসা থেকে কাজের কথা বলে বেরিয়ে যায়। এরপর সে বাসায় না ফেরায় তাঁর খোঁজ শুরু হয়। সম্ভাব্য সকল জায়গায় তার মেয়ের খোঁজ করে সন্ধান না মেলায় গত ৯ জুলাই থানা একটি জিডি করা হয়। পরে তিনি লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারেন তার মেয়েকে রওশন হাবিব ওরফে বাবুসহ কয়েকজন অপহরণ করে রংপুরে নিয়ে যায়। রংপুরে তার মেয়ে কোথায় আছে নিশ্চিত হতে না পেরে বুধবার বিষয়টি পুলিশকে জানান তিনি।

এদিকে পুলিশ ঘটনাটি জানার পর অপহৃতা গৃহবধুর সন্ধানে মোবাইল ট্রাকিংসহ সোর্স নিয়োগ করে। এরই প্রেক্ষিতে পুলিশ নিশ্চিত হয় ওই গৃহবধুকে রংপুর মহানগরীর ধাপ খলিফাটারী এলাকার একটি বাসায় আটকে রাখা হয়েছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে গত বুধবার গভীর রাতে সৈয়দপুর থানার উপ-পরিদর্শক মো. এমাদ উদ্দিন মো. ফারুক ফিরোজের নেতৃত্বে পুলিশ রংপুরে যায় পুলিশের একটি দল। পরে সেখানকার থানা পুলিশের সহযোগিতায় মহানগরীর ধাপ এলাকার খলিফাটারীর একটি বাড়িতে অভিযান চালানো হয়।

অভিযানে ওই বাড়ি থেকে অপহৃতাকে উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় অপহরণ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ মিজানুরকে আটক করা হয়। অপহৃত চাঁদনীকে উদ্ধার ও এ ঘটনায় জড়িত হোটেল মালিক মিজানুরকে আটক করে সৈয়দপুরে নিয়ে আসে পুলিশ।

এদিকে এ ঘটনার ৫ দিন অতিবাহিত হলেও এখনও মামলার অপর দুই আসামীকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। ফলে বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন মামলার বাদি।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একজনকে হাতে নাতে আটক করলেও অপর আসামীরা এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে। রনচন্ডী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোকলেছুর রহমান বিমান সদর্পে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ তাকে ধরছে না।

সৈয়দপুর থানার ওসি শাহজাহান পাশা বলেন, আটককৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য আদালতে রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। রিমান্ড মঞ্জুর হলে অন্যান্য আসামীদেরও গ্রেফতার করা হবে।

Leave a Reply

Back to top button
Close