Entrepreneur

১০০০ টাকা নিয়ে চট্টলাকন্যা আজ সফল উদ্যোক্তা

সফল নারী উদ্যোক্তা- রুহী মোস্তফা

রুহি মোস্তাফা, এসএসসি পড়া অবস্থায় বিয়ে হয়ে গেলো। বিয়ের পর ক বছর সংসার করার পর একজন পাকা গৃহিনী হলেন রুহী।
চট্টগ্রামে বিভিন্ন মেলা হত, সেই মেলা গুলোতে অংশ নিতেন রুহী। বাসায় তৈরি করা নানান মুখরোচক খাবার নিয়ে মেলাতে অংশ নিতেন। ১০০০ টাকা দিয়ে স্টল নিতেন, সাজাতেন খ্যাদ্য পণ্য। চট্টগ্রামের ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউটের একটি মেলায় অংশ নিলেছিলেন রুহি। প্রথমে শখের বসে পুরোপুরি নিজের আগ্রহে বিভিন্ন মজাদার খাবার বানাতেন এবং প্রসংশা কুড়িয়েছেন অনেক।

পরিবারের কর্তা,সরকারি কর্মকর্তা স্বামীর সাথে নিজেও পরিবারের হাল ধরতে চেষ্টা এবং এক সংগ্রামের শুরু এই Agambartaর।
প্রায় ৭০ জন এর মতো ক্লায়েন্ট রুহী মোস্তফার লিস্টে। বাসা থেকে খাবার তৈরি করা এবং ডেলিভারী দেয় নানান উৎসবের সময়।
১০/১২টি মেলা করবার পর রুহী মোস্তফা ভাবলেন বড় বড় অনেক উৎসবে খাবার ক্যাটেরিং করা হয়েছে। গ্রাহক সংখ্যাও বাড়ছে। আরও কি করে প্রসারিত করা যায় নিজের উদ্যোগকে। কারণ যিনি উদ্যোক্তা তিনি সবসময় সৃজনশীল চিন্তার মাঝেই থাকেন।

ইতিমধ্যেই গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করে ফেলেছেন রুহি। কাজের জগতকে ঠিক রেখেই আত্মপ্রত্যয়ী উদ্যোক্তা।
নতুন করে নিজ উদ্যোগকে সাজানো- জিন্নাত আরা নিপুণ আরেক সহ-উদ্যোক্তা এবং শুভাকাঙ্খী এসে প্রস্তাবনা রাখলেন যে, দুজন মিলে ভাবা যায় নতুন কিছু শুরু করা যায়। যেমন ভাবা তেমন কাজ।
এসেন্সিয়াল ক্যাটেরিং এন্ড হ্যান্ডিক্রাফট তৈরি হলো। দুজনে মিলে পুঁজি খাটালেন প্রায় ২ লক্ষ টাকা।
২০০১ সাল- রুহী মোস্তফা, ফ্রোজেন এন্ড ফ্রাই ফুড এর ছোট একটি ফ্যাক্টরি দিলেন চট্টগ্রামে।
১৬ ঘণ্টা একটানা পরিশ্রম করতে শুরু করলেন আত্মপ্রত্যয়ী উদ্যোক্তা রুহী মোস্তফা এবং জিন্নাত আরা নিপুন। ২ বছর একত্রে কাজ করবার পর রুহী মোস্তফা একাই পরিচালনা করতে থাকলেন স্বীয় উদ্যোগ।
২০ থেকে ৩০ জনের মতো কর্মী। অর্ডার মিলতে থাকলো ব্যাপক। আগে যারা কিংবা যেই প্রতিষ্ঠানগুলো ক্লায়েন্ট ছিলো, সেই সাথে নতুন নতুন আরও যোগ হলো অনেক গ্রাহক, ক্রেতা রুহী মোস্তফার ফ্রোজেন এন্ড ফ্রাই ফুডস এর মুখরোচক সব খাবার গুলোর।

দৌড় ঝাপ পূর্ণ নাগরিক জীবন, কর্মব্যস্ত জীবনে ফ্রোজেন ফ্রাই ফুডের চাহিদা বিংশ শতকের শুরুতে সারা বিশ্বের মতোই বাংলাদেশেও তাঁর চাহিদা বা স্থান করে নিয়েছিলো, চাহিদা ডানা মেলেছিলো বাংলাদেশেও। উদ্যোক্তা রুহী মোস্তফার উদ্যোগ সেই সময় ডানা মেললো তাঁর নিজস্ব আবেদন নিয়ে।
Agambartaর প্রতিষ্ঠান এসেনশিয়াল তাঁর গুণগত পণ্যে সুনাম ছড়াতে থাকে।


একে একে Agambartaর পণ্য প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে নিজস্ব কোয়ালিটি সার্টিফিকেশন, হেলথ এন্ড হাইজিন সকল টেস্ট প্রয়োজনীয় গুণগত মানসম্পন্ন পণ্য হিসেবে পরীক্ষিত হয়ে স্থান পায় আগরা, স্বপ্ন, মিনা বাজার, চিটাগং ক্লাব, খুলশি মার্ট, ল্যাভেন্ডার সিএসডি, নান্দনিক, র‍্যাডিসন ব্লু, পিক এন পে, মেহেদি মার্ট এর মত মেগা মেগা শপিং মলে। এছাড়াও- ছোট বড় মিলিয়ে আরও দেড়শ’র মত ক্লায়েন্ট আজ Agambartaর ক্লায়েন্ট লিস্টে।
কোর্স করেছেন উদ্যোক্তা নানা সময়ে উদ্যোগ চালানোর শুরু থেকেই অত্যন্ত দক্ষতার সাথে। ফুড সেফটি এবং সেফটি ম্যানেজমেন্ট। মত বিনিময় করেছেন পাঁচতারা হোটেল এর শেফ থেকে অনেক ফুড এক্সপার্টদের সাথে, নিয়েছেন নিরাপদ খাদ্য নিয়ে অভিজ্ঞতা।

চট্টগ্রাম উইমেন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর সম্মানিত সভাপতি এবং দেশ বরেণ্য নারী উদ্যোক্তা উন্নয়ন ব্যক্তিত্ব মিজ মনোয়ারা হাকিম আলীর নেতৃত্বে এবং চেম্বারের আয়োজনে নানান সেশন, ট্রেনিং, প্রশিক্ষণ এবং ব্যক্তিগত আয়োজনেও দেশে এবং বিদেশে গিয়ে অনেক অভিজ্ঞতা এবং দর্শন অর্জন করেছেন। নিজেকে শাণিত করেছেন একজন আত্মপ্রত্যয়ী উদ্যোক্তা হিসেবে।
ব্যাংকক, দুবাই, সিঙ্গাপুর, ইউকে, বেলজিয়াম, আমেরিকা এমন সব দেশে গিয়ে কুড়িয়েছেন মূল্যবান অভিজ্ঞতা। আজ Agambartaর এক দক্ষ কর্মীবাহীনি- প্রায় ১০০ জনেরও ওপরে।
স্পেশাল পরোটা, বিফ রোল, চিকেন রোল, ভেজিটেবল রোল, অনথন, লিভার সিঙ্গারা, চিকেন সমুচা, ভেজিটেবল সমুচা, চিকেন সাসলিক, চিকেন ফ্রাই, চিকেন কাটলেট, চিকেন ললিপপ, ভেজিটেবল সিংগারা, বিভ সমুচা, আলু পুরি, ডালপুরি, এমন ২৯টি ফ্রোজেন এন্ড ফ্রাই ফুড এ সমৃদ্ধ Agambartaর উদ্যোগ এসেনশিয়ালস এর ফুড ক্যাটেগরি।


এছাড়াও যত হাজার হাজার অতিথিই হোক না কেন, উৎসবে, বিয়েতে এবং যেকোন জাতীয় উৎসবে Agambartaর এসেনশিয়াল ক্যাটেরিং ৩৩টি মেনু নিয়ে উদ্যোক্তা যেকোন উৎসবের অর্ডার নিতে এবং অতিথির তৃপ্তি আপ্যায়নে সদা সচেষ্ট স্বনাম ক্যাটেরিং সার্ভিসে। উদ্যোক্তা অর্জন করেছেন এক সুনাম এবং বিশ্বস্ততা যুগেরও বেশি সময় ধরে।
কঠোর পরিশ্রম করে দৃঢ় মনোবল নিয়ে আত্মপ্রত্যয়ে বলীয়ান এক নারী এগিয়ে গিয়েছেন, নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন এক বলিষ্ঠ উদ্যোক্তা হিসেবে, সৃষ্টি করেছেন কর্মসংস্থান।
উদ্যোক্তা তৈরি করেছেন নিজের উদ্যোগ, তৈরি করছেন পণ্য, কমিয়ে দিয়েছেন অনেক ঘরে ঘরে কর্মজীবি গৃহিনীর কষ্ট, আধুনিক জীবনধারায় যোগ করেছেন, সহজতর মাত্রা নাগরিক জীবনে।

 

 

ডেস্ক রিপোর্ট, উদ্যোক্তা বার্তা

Leave a Reply

Back to top button
Close